Link copied.
গ্র্যাভিটি হিল লাদাখ: এক রহস্যময় চৌম্বকীয় পাহাড়ের গল্প!
writer
অনুসরণকারী
cover
আমরা সবাই হয়ত জ্যাক অ্যান্ড গিল এর পাহাড়ে উঠে পানি আনতে গিয়ে ফেরার পথে পা পিছলে নিচে পড়ার কার্টুন রাইম টি দেখেছি। স্বাভাবিকভাবে, এরকম হওয়ার কথা। উঁচু ঢাল থেকে নিচের দিকে পড়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ভারতের এমন একটি পাহাড় আছে যেখানে নীচের দিকে যাওয়ার পরিবর্তে জিনিসগুলি চূড়ান্তভাবে উপরের দিকে যেতে থাকে। অবাক লাগছে ? আসলে এমনই অবস্থা হয় ভারতে লাদাখের চৌম্বকীয় পাহাড়ে। লেহ সিটি থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই ছোট্ট রাস্তাটি মহাকর্ষের কারণে অনন্য।

লেহ-কারগিল মহাসড়কের একটি অংশ। এই রাস্তাটি যানবাহনকে উপরের দিকে আকর্ষণ করে। ইঞ্জিন বন্ধ করার পর, একটি গাড়ী এই পাহাড়ে ২০কিমি / ঘণ্টা গতিতে নিজে নিজে চলতে থাকে। । এই অসাধারণ ঘটনার কারণে একে ‘রহস্য হিল’ এবং ‘গ্র্যাভিটি হিল’ এর মতো অনেক নাম দেওয়া হয়। 
cover
লাদাখের চৌম্বকীয় হিল কী

শ্রীনগর-লেহ মহাসড়কের এই বিশেষ অংশে আপনি উপরের দিকে উঠতে থাকা একটি রাস্তা পরিষ্কার দেখতে পাবেন। যদি আপনি গাড়ীর ইঞ্জিন বন্ধ করে দেন এবং আপনার গাড়ীটিকে নিরপেক্ষ অবস্থায় দাড়ঁ করান, এটি ধীরে ধীরে চলতে শুরু করবে এবং নিজে থেকে প্রতি ঘণ্টা ২০ কিলোমিটার গতিতে চলতে থাকবে। এই স্পটটি ‘গ্র্যাভিটি হিল লাদাখ’ বা ‘গ্র্যাভিটি ডিফিং হিল লাদাখ’ নামেও পরিচিত। এই রহস্যময় ঘটনাটির পিছনে অবশ্যই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা রয়েছে। তবে স্থানীয় লোকজনকে এ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তারা সম্পূর্ণ আলাদা একটি গল্প বলবে। 
চৌম্বকীয় পাহাড়ে কি ঘটে?

এর পিছনে কয়েকটি ভিন্ন তত্ত্ব রয়েছে। এর মধ্যে দুইটি তত্ত্ব খুব প্রচলিত। একটি তত্ত্ব অনুসারে, এই রহস্যজনক ঘটনার পেছনে কাজ করে বলে মনে করা হয় একটি চৌম্বকীয় শক্তিকে। যা এত শক্তিশালী যে এটি গাড়িগুলিকে উপরের দিকে টানতে পারে। এটি প্রকৃতপক্ষে এতটাই শক্তিশালী যে এই অঞ্চলের উপর দিয়ে উড়ন্ত বিমানগুলিও চৌম্বকীয় হস্তক্ষেপ এড়াতে তাদের উচ্চতা বৃদ্ধি করতে হয়। এখান দিয়ে যাওয়া প্রতিটি পর্যটক গাড়ীর ইঞ্জিন বন্ধ করে দেন যেন তারা এই রহস্যময় ঘটনাটি উপভোগ করতে পারেন ।  
cover
অপর একটি জনপ্রিয় তত্ত্ব হচ্ছে, অপটিক্যাল মায়া বা ‘অপটিক্যাল ইলুইশন’। এই অনুসারে, পাহাড়টি সত্যই চৌম্বকীয় শক্তিযুক্ত নয় বরং এটি কেবল ধরণের একটি অপটিক্যাল মায়াজাল তৈরি করে যার ফলে রাস্তাটিকে মনে হয় যেন এটি চূড়ায় উঠে যাচ্ছে। অতএব, আপনি যখন যানটিকে উপরে যেতে দেখলেও, তা আসলে নিচের দিকেই যাচ্ছে! 
লোককথা

আপনি যদি স্থানীয়দের সাথে বিশেষত গ্রামবাসীদের সাথে কথা বলেন, তবে তারা আপনাকে গল্পটির একটি ভিন্ন সংস্করণ বলবে। তাদের মতে এখানে একসময় এমন এক পথ ছিল যা সরাসরি স্বর্গে গিয়ে পৌছায়। যারা স্বর্গে যাওয়ার যোগ্য, তাদের গাড়িটিকে এই পথ উপরের দিকে টেনে নিবে; আর যারা অযোগ্য, তারা যতই চেষ্টা করুক না কেন কখনই এই পথে এভাবে উঠতে পারবে না। তাদের জন্য, এই পুরো ধারণা এবং অঞ্চলটি অতিপ্রাকৃত। 
cover
কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে, এটি কেবল একটি গল্প। কিছু লোক ড্রাইভারকে দোষারোপ করে বলে যে ইঞ্জিন বন্ধ করার সময় গাড়ি তখনও চলমান ছিল। এ কারণে এটি চলতে থাকে। অন্য কিছু লোক বুঝতে পারেনি যে রাস্তার কোন সঠিক অংশ থেকে এর শুরু এবং তারা ভুল জায়গায় গাড়ি স্থির করান। ফলে যখন তাদের যানবাহন স্থির ই ছিল, উল্টো পথে উপরে উঠলো না, তখন তারা ম্যাগনেটিক হিলের গল্পটিকে নকল বলে বিশ্বাস করেছিলেন।  
চৌম্বকীয় পাহাড়ের পিছনে সত্য

স্নায়ুবিজ্ঞানে অপটিক্যাল মায়াজালের ধারণা রয়েছে। সাধারণ মানুষের ভাষায় যার অর্থ: আপনি হয় এমন কিছু দেখেন যা সেখানে নেই; অথবা আসলে যা আছে, আপনি শারীরিকভাবে তার চেয়ে আলাদা জিনিস দেখতে পান। রেকর্ডকৃত অসংখ্য অপটিক্যাল বিভ্রমগুলির মধ্যে একটি হচ্ছে গ্র্যাভিটি হিলের অপটিক্যাল বিভ্রম। যার অর্থ, খুব কম নিচের দিকে হওয়া ঢালকে উতরাই ঢাল হিসেবে দেখা! 
cover
এটি কেন এমনভাবে দেখা যায় তার জন্য সম্পূর্ণ বা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ‘বাধা দিগন্ত’কে দায়ী করা যেতে পারে। আমাদের চোখ ও মন দিগন্তকে নির্ভরযোগ্য রেফারেন্স হিসাবে ব্যবহার করে অভ্যস্ত। কোনও নির্দিষ্ট ঢাল সোজা বা তির্যক কিনা তা দিগন্ত না থাকলে আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারব না। একই ধারণাটি বিমানের ক্ষেত্রেও কাজ করে। আকাশে পাইলটরা দিগন্ত দেখতে পারেন না এবং যদি বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম এবং গ্যাজেটের ব্যবহার না থাকতো। তবে বিমান আসলে সরাসরি উপরের দিকে নাকি নীচের দিকে উড়ছে তা কখনই বলা সম্ভব হত না। দিগন্ত যদি বাধাবিঘ্ন হয়, তবে আমরা কনফিউজড হয়ে যাই এবং প্রায়শই কিছু জিনিসকে অনুভূমিক বা উল্লম্ব বলে মনে করি যা আসলে এমন না।   
cover
অপটিক্যাল বিভ্রম তত্ত্বটি পরীক্ষা করার জন্য, রাজস্থান ইন্সটিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজির একদল শিক্ষার্থী মাটির চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের শক্তি যাচাই করতে একটি পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। তাঁদের পরীক্ষার ডিভাইসটি ২৫ থেকে ৬০ মাইক্রোটেসেলার চৌম্বকীয় শক্তির বিস্তৃত আকার দেখিয়েছি। গবেষকরা দাবি করেন যে এটি কোনও কিছুই টানতে সক্ষম না, বিশেষত একটি গাড়িকে টানতে পারবে এমন শক্তিশালী নয়।   
ইলিউশন বা বিভ্রম

রাস্তাটির আশেপাশে অবস্থিত পাহাড়ের নির্দিষ্ট বিন্যাস দিগন্তকে বাধা দেয়। ফলে এই ঘোটনাটি প্রাকৃতিক অপটিক্যাল প্রভাব। এই রাস্তার সংক্ষিপ্ত প্রান্তটি যাকে আপাতদৃষ্টিতে উত্থানের দিকে দেখা যাচ্ছে , আসলে এর ঢাল নিচের দিকে। এই কারণেই গাড়িগুলি ধীরে ধীরে গতি অর্জন করে। সামনের পাহাড়গুলি প্রাকৃতিক-ভাবে এমনভাবে ছড়িয়ে আছে যে আপনি দিগন্ত দেখতে পান না। এটি আপনার মনকে ধোঁকা দেবে এবং আপনি মনে করবেন যে আপনার গাড়িটি উপড়ের দিকে যাচ্ছে। কিন্তু আসলে এটি নিচের দিকেই যাচ্ছে। 
cover
ভ্রমন

এই ঘটনাটি কোথায় লক্ষ্য করা যায় তার সঠিক স্থান উল্লেখ করে কর্তৃপক্ষ একটি বিলবোর্ড লাগিয়েছে। রাস্তায় চিহ্নিত একটি হলুদ বাক্সে সঠিক পয়েন্টটি নির্দেশ করা আছে। যেখানে গাড়িকে নিরপেক্ষভাবে পার্ক করা উচিত। পরবর্তীতে সেখান থেকে গাড়িটি আস্তে আস্তে পাহাড়ের উপরে উঠতে দেখা যায়। যদিও এই রাস্তাটি সারা বছরই উন্মুক্ত থাকে, তবে চৌম্বকীয় পাহাড়ে যাওয়ার সেরা সময়টি হল জুলাই থেকে অক্টোবরের মধ্যে। এই সময়ে রাস্তা স্পষ্ট থাকে এবং ড্রাইভ করতে কোনও ঝামেলা হবে না। এটি কম-বেশি নির্জন অঞ্চল। এ অঞ্চলে খাবারের জয়েন্ট বা রেস্তোঁরাও তেমন নেই, তাই এই রহস্যের পাহাড়ে যাত্রা শুরু করার আগে নিশ্চিত করুন যে আপনি পর্যাপ্ত খাবার প্যাক করেছেন। 
cover

Ridmik News is the most used news app in Bangladesh. Always stay updated with our instant news and notification. Challenge yourself with our curated quizzes and participate on polls to know where you stand.

news@ridmik.news
support@ridmik.news
© Ridmik Labs, 2018-2021