জীবনযাপন
মোটা থেকে চিকন হবার ৭ টি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যা আপনাকে ভাবাবে
এই পৃথিবীতে সবাই সুন্দর হতে চায়। তবে সুন্দরের ধারণাটা সুনির্দিষ্ট নয় বরং অনেকটা আপেক্ষিক। একেকজনের কাছে সেটা একেক রকম। এই একেক রকম ধারণার মধ্যে অন্যতম বহুল প্রচলিত ধারণা হচ্ছে, সুন্দর মানে, ফর্সা, চিকন সুস্বাস্থ্য। এই ধারণার উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে বর্ণবাদ, বডি শেমিং এর মতো আচরণ। মানুষ ও নিজের গায়ের রঙ ফর্সা করার জন্য অনেক অর্থ খরচ করছে, স্বাস্থ্য কমিয়ে আনার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। আজকে কথা বলবো মূলত স্বাস্থ্য নিয়ে। এই পৃথিবীতে যারা মোটা আছে, তাদের বহুল আকাঙ্খিত বিষয় হচ্ছে কিভাবে তাদের স্বাস্থ্য কমানো যায় । তারা মনে করে যে একটি চিকন স্বাস্থ্যই সকল সুখের উৎস। অনেক মানুষ প্রচুর পরিশ্রম করে চিকন হয়, আবার অনেক মানুষ খাদ্যাভাসে পরিবর্তন এনে চিকন হয়। আজকে আমরা জানবো একজন মোটা মানুষ যদি চিকন হতে চায় , তাহলে তাকে সাতটি তেতো সত্য সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। যেই কথাগুলো তাকে আগে জানানো হয় না। চলুন সেগুলো জেনে আসা যাক। 
আপনার মোটা পরিচয়টা সহজে যাবে না
আমার নিজের ওজন একসময় ৮৬ কেজি ছিলো। বি এম আই এ সেটা ওভার ওয়েটে ছিলো। সেখান থেকে ওজন ৭২ কেজিতে এনেছি। বর্তমানে বি এম আই ইন্ডেক্স অনুযায়ী আমি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী, আগের চেয়ে অনেক চিকন। কিন্তু আশপাশে বন্ধুমহলে আমার এই চিকন পরিচিতিটা এখনো গড়ে ওঠেনি। তারা এখনো মনে করে যে আমি সেই আগের মোটা , মেদবহুলই আছি। ওজন কমানো একটি লম্বা সময়ের ব্যাপার , তার উপর আপনার যে মোটা পরিচিতিটা রয়েছে সেটা মুছতে আরো অনেক বেশী সময় লাগবে।
চিকন হলেই আত্ন তৃপ্তিতে ভুগতে পারবেন না
ধরুণ একজন মানুষ যখন মোটা ছিলো, তার কাছে তখন একটি চিকন স্বাস্থ্যই ছিলো আদর্শ। কিন্তু চিকন হওয়ার পর দেখা যাচ্ছে সে যেটা কল্পনা করেছিলো সেরকম কিছু সে পাচ্ছে না। তার শরীর এবং মনকে তার এই অবস্থা মানায় নিতে একটু সময় দিতে হবে। তাকে শিখতে হবে যে সে এখন যেই অবস্থায় আছে সেটিই তার জন্য সবচেয়ে ভালো। সে চাইলেই একজন শিশুর মতো নরম ত্বকের মানুষ হতে পারবে না। আগে যেই জিনিসগুলো মোটা হওয়ার অজুহাতে এড়িয়ে চলতো সেগুলো করার জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। 
আপনাকে চিকন হতে হবে এবং চিকনই থাকতে হবে
এই সমাজে মোটা মানুষদেরকে ধরেই নেয়া হয় এরা অকর্মণ্য এবং অলস। অন্যদিকে যারা চিকন তারা কাজ কর্মে পটু এবং দক্ষ। এরই জন্য বিভিন্ন শারীরিক খেলাধুলার ইভেন্টগুলোয় দেখা যায় যে, মোটা ও চিকন মানুষদের আলাদা করে দেয়া হয়। এক্ষেত্রে মোটাদের নিজেদের যোগ্য প্রমাণ করার সুযোগটা চলে যায়। অন্যদিকে যারা চিকন তাদের ক্ষেত্রে এটা চাপিয়ে দেয়া হয় যে তুমি যোগ্য এবং সেরা। অর্থাৎ আপনি যদি চিকন হন আপনাকে এই প্রত্যাশাগুলো পূরণ করতেই হবে। মোটা মানুষদেরকেও তখন ঠিক করতে হয় যে তাকে চিকন হতেই হবে নিজেকে সেরা প্রমাণের জন্য। সেই প্রত্যাশাগুলো শুধুমাত্র শারীরিক এমন না, মানুষ এটাও মনে করে যে চিকন মানুষ আত্ননীর্ভরশীল এবং অনুপ্রেরণামূলক ব্যক্তিত্বের অধিকারি হয়।

ওজন নিয়ন্ত্রণ চলতেই থাকবে
আপনি যদি মনে করেন যে আপনি ওজন কমিয়ে ফেলেছেন, এখন আর আপনার ওয়ার্কাউট বা ডায়েট করা লাগবে না, সেটা একদম ভুল ধারণা। আপনি পাঁচ মাস কষ্ট করার পর যদি আর কষ্ট না করে থাকেন, আবার আগের মত খাওয়া দাওয়া শুরু করেন, দেখবেন এক মাসেই আপনি আবার মুটিয়ে গিয়েছেন। একটা কথা মাথায় রাখতে হবে, মোটা মানুষের ওজন যদি ১০ কেজি বেড়ে যায় সেটা ততটা চোখে পড়ে না কিন্তু একজন চিকন মানুষের ওজন যদি ১০ কেজি বেড়ে যায়, সেটা সবার চোখে পড়ে যায়। আগেই বলেছি, আপনার মোটা পরিচয়টা তুলে ফেলে অনেক বেশি কষ্টের কাজ। সুতরাং আপনি যদি চিকন হতে চান আপনার মাথায় রাখতেই হবে যে আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য ডায়েট অথবা ওয়ার্কাউট সারাজীবন চলতেই থাকবে।

ওজন কমানো মানে আপনার শক্তিও কমে যাওয়া
সাধারণত ভারী স্বাস্থ্যের অধিকারীরা ভারী কাজ করতে পারে খুব সহজাত ভাবে। আমি নিজে অভিজ্ঞতা করেছি যে, বর্তমানে ওজন কমানোর পর আগে যেই ভারী কাজগুলো সহজেই করে ফেলতাম সেগুলো এখন করতে পারি না। যদিও আগের যে স্ট্যামিনা অনেক বেড়েছে। যেসব মানুষেরা অনেক বেশি ওজন ঝরিয়ে ফেলেছে তারা দেখতে পায় যে, তাদেরকে এখন মানুষ দুর্বল ভাবা শুরু করে। যেটা একটি প্যারাডক্স।
ওজন দিয়ে আসলেই সৌন্দর্য মাপা হয়
একজন মানুষ শুকানোর পর তার আশপাশের মানুষ যখন তাকে অভিবাদন দেয় সেটা খুব আনন্দদায়ক। তখন গিয়ে সেই মানুষ বুঝতে পারে তার কষ্ট স্বার্থক। মানুষ যেই জামা কাপড়গুলো পড়লে মনে করতো তাকে সুন্দর লাগবে সেগুলো যখন তার গায়ে সুন্দর ফিট হয় , তখন সেটি অনেক প্রশান্তিদায়ক। আপনি একজন মজার মানুষ তখনও ছিলেন এখনো আছেন। পার্থক্য হচ্ছে, তখন আপনি অনেক মোটা ছিলেন এখন নাই। এই পার্থক্যের কারণেই আপনাকে অনেক আকর্ষণীয় মনে হবে। তখন আপনি আসলেই বুঝতে পারবেন সৌন্দর্যের মাপকাঠি হচ্ছে আপনার ওজন।
কিছু কিছু সময় আপনার স্বাস্থ্য বেশ অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়বে।
এই বিষয়টা খানিকটা মজার আবার দুঃখের। উপরে এতোক্ষণ বলেছি যে চিকন হলে আপনার কী কী সুবিধা হতে পারে আপনাকে কিভাবে সুন্দর মনে হবে। তবে চিকন হওয়ার ফলে আপনাকে অনেক কিছু হারাতেও হবে। ধরুণ আপনি আগে অনেক আরাম প্রিয় লোক ছিলেন, আপনি যেখানে সেখানে আরাম করে ফেলতে পারতেন এখন আপনার শরীরে সেই মাংসের স্তরগুলো আর নেই, সুতরাং আপনার সেই শরীরের যেই আরামটা সেটা আর পাবেন না। আপনার এতো দিনের মেদবহুল শরীরটা যখন বুঝতে পারবে যে আর নেই, সেটা অনেক সময় অস্বস্তিকর অবস্থায় ফেলে দিতে পারে।
আমাদের সমাজে মোটা চিকন, ফর্সা কালো, সৌন্দর্য পরিমাপকের ভিত্তি হয়ে আছে সেই প্রাচীনকাল থেকেই। এজন্য বর্ণবাদ অথবা বডি শেমিং খুব প্রাচীন অপরাধ। সৌন্দর্য একটি আপেক্ষিক ধারণা। আজকের যেই উদারবাদ ধারণার চল শুরু হয়েছে, সেখানে এই স্বাস্থ্য, গায়ের রঙ খুব বেশী গুরতুত্বপুর্ণ নয় সুন্দরের ক্ষেত্রে। মোটা শরীর অনেক রোগ শোকের বাহক, শরীর সুঠাম থাকলে এমনিতেই আপনার মানসিক স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। আমরা বেশীরভাগই মনে করি ওজন কমালে শুধু আকর্ষণীয় মনে হয়। আসলে গবেষণায় দেখা গেছে, যারা ওয়ার্কাউট অথবা শারীরিক পরিশ্রম বেশি করে, তাদের মস্তিষ্কে Brain Fog কম জমা হয়, যার জন্য সে কোনো কাজে আরো বেশি মনোযোগ দিতে পারে। সুতরাং সব কিছু সুস্থ স্বাভবিক রাখতে একটি সুঠাম স্বাস্থ্য রাখা খুবই গুরুত্বপুর্ণ।
তথ্যসূত্র

https://zitafontaine.medium.com/7-ugly-truths-of-becoming-skinny-after-being-fat-ecab91def33
জীবনযাপন
আরো পড়ুন