১২ টুকরো পাথর ‘চুরির’ দায়ে মৃত্যুদণ্ড!
আন্তর্জাতিক
১২ টুকরো পাথর ‘চুরির’ দায়ে মৃত্যুদণ্ড!
১২ টুকরো পাথর ‘চুরির’ দায়ে মৃত্যুদণ্ড!
১২ টুকরো পাথর ‘চুরির’ দায়ে মৃত্যুদণ্ড!

ব্রিটেনের অবসরপ্রাপ্ত একজন ভূতাত্ত্বিক গিয়েছিলেন ইরাকের ইরিদু অঞ্চলে। সেখানে তিনি ভূতত্ত্ব ও প্রত্নতাত্ত্বিক সফরে যান। সেখানকার একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা থেকে ১২টি পাথর এবং ভাঙা মৃৎপাত্রের টুকরো নিয়ে দেশে ফিরছিলেন। অবৈধভাবে প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনার স্মারক সংগ্রহ করায় ব্রিটিশ এই পর্যটককে বিচারের কাঠগড়ায় তুলেছে ইরাকি কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (১৭ মে) ব্রিটিশ দৈনিক দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট -এর এক প্রতিবেদনে তথ্য জানা গেছে। দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট বলছে, যুক্তরাজ্যের নাগরিক জিম ফিটন এবং তার সহযোগী পর্যটক জার্মানির ভলকার ওয়াদারম্যান ইরাকে এখন মৃত্যুদণ্ডের সাজার মুখোমুখি হয়েছেন। ৬৬ বছর বয়সী জিম এবং ওয়াদারম্যান গত রোববার (১৫ মে) প্রথমবারের মতো ইরাকের একটি আদালতের শুনানিতে অংশ নিয়েছেন। কয়েদিদের জন্য নির্ধারিত হলুদ রঙের পোশাকে আদালতে দেখা গেছে তাদের। চলতি মাসের শুরুর দিকে বাথে বিবিসির সঙ্গে আলাপকালে ফিটনের পরিবারের সদস্যরা বলেন, এই মামলার কারণে মেয়ের বিয়েতে উপস্থিত থাকতে না পারায় ৬৬ বছর বয়সী ফিটনের হৃদয় ভেঙে গেছে। ফিটনকে মুক্ত করতে সহায়তার লক্ষ্যে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র, কমনওয়েলথ এবং উন্নয়ন অফিসে কাছে একটি অনলাইন পিটিশন দাখিল করা হয়েছে। তার শ্যালক স্যাম তাসকার বিবিসিকে বলেছেন, এই পিটিশনে এক লাখ ২৪ হাজার মানুষ স্বাক্ষর করেছেন।

আন্তর্জাতিকযুক্তরাজ্যইরাক
আরো পড়ুন