কাতার বিশ্বকাপ: ফিক্সচার, গ্রুপ এবং খুঁটিনাটি!
খেলাধুলা
কাতার বিশ্বকাপ: ফিক্সচার, গ্রুপ এবং খুঁটিনাটি!
আজ পর্দা উঠছে 'দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ' খ্যাত বিশ্বকাপ ফুটবলের ২২তম আসরের। বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে সাজ সাজ রব। পুরো বিশ্বের রাস্তাঘাটকে ভক্তরা নিজের পছন্দের দলের পতাকা দিয়ে সাজিয়ে বিশ্বকাপের আমেজকে আরও সৌন্দর্য দিয়েছে। এবছর বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেয়েছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার।
বিশ্বের প্রথম আরব দেশ হিসেবে বিশ্বকাপ আয়োজনের ভূমিকা পালন করবে কাতার। দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানে ২০০২ বিশ্বকাপ আয়োজনের পর এটি এশিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া দ্বিতীয় বিশ্বকাপ। এটিই হতে যাচ্ছে ৩২ দলের অংশগ্রহণের শেষ বিশ্বকাপ। কেননা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো ও কানাডায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ২০২৬ ফুটবল বিশ্বকাপ থেকে দেখা যাবে ৪৮টি দলকে।
অন্যসব আসরের মতো এইবারের ফুটবল মহোৎসব মে, জুন, জুলাইতে না অনুষ্ঠিত হয়ে নভেম্বর, ডিসেম্বর মাসে মাঠে গড়াবে। কাতারে তীব্র গ্রীষ্মকালীন উত্তাপের কারনেই প্রথম বারের মতো সময় পাল্টিয়েছে ফিফা। ২০২২ বিশ্বকাপটি ২১ নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে পর্দা নামবে ১৮ ডিসেম্বর। এর মাঝে কাতারের ৫টি শহরের ৮টি নান্দনিক স্টেডিয়ামে ম্যাচ গুলো অনুষ্ঠিত হবে। গ্রুপ পর্বে কোন দল কার সঙ্গে লড়বে সেটি গত এপ্রিলেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। তবে তখন পর্যন্ত কেবল ২৯টি দল নিশ্চিত ছিল। বাকি ছিল ইউরোপিয়ান প্লে-অফের একটি, আর দুইটি আন্তঃমহাদেশীয় প্লে-অফ৷ সেদল গুলোর নামও এখন নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে। ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া আর কোস্টেরিকা উঠে এসেছে সেই তিন প্লে-অফ থেকে। ফলে, ৩২ দলের সম্পুর্ণ তালিকাও হাতে পাওয়া গেল।
যেভাবে হয়েছিল ড্র!
অনেকটা লটারির মতো হয়ে থাকে এই ড্র প্রক্রিয়া। সে ড্র অনুষ্ঠানে ফিফার আতিথেয়তা দেওয়া হয় বিশ্বের নাম করা ফুটবলারদের। তাদের দিয়ে অনুষ্ঠানের প্রক্রিয়া শুরু হয়। তারাই কয়েকটি নির্ধারিত পট বা পাত্র থেকে একটি একটি করে দলের নাম বের করেন। কাতার বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছিল দোহায়। পুরুষ ফুটবলের বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ের অবস্থানের বিচারে চারটি পটে ভাগ করা হয় বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন করা দল গুলোকে। প্রতিটি পটে ছিল আটটি করে দলের নাম। প্রথম পটে স্বাগতিক কাতারসহ র‍্যাংকিংয়ে শীর্ষ সাতদলকে রাখা হয়। একই পটে থাকা দলগুলো গ্রুপে পর্বে একে অপরের বিপক্ষে লড়বে না। এখানে অবশ্য স্বাগতিক দেশ একটা বিশেষ সুবিধা পেয়ে থাকে। গ্রুপ পর্বে শীর্ষ দলগুলোর মোকাবেলা করতে হয় না তাদের। বাকি পটগুলোও র‍্যাংকিং অনুযায়ী সাজানো হয়। দুই নম্বর পটে র‍্যাংকিংয়ের আট থেকে পনেরো, ৩ নম্বর পটে ষোল থেকে তেইশ, চার নম্বর পটে চব্বিশ থেকে আঠাশ, আর প্লে অফ খেলে আসা ৩ দল। 
রুট টু ফাইনাল!
৩২ দলকে এ, বি, সি, ডি, ই, এফ, জি এবং এইচ অনুসারে ৮টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। কোন গ্রুপে কে থাকবে তা লটারির মাধ্যমে গত এপ্রিলেই নির্ধারণ করা হয়েছে। গ্রুপ পর্বে প্রত্যেক গ্রুপ থেকে সর্বোচ্চ পয়েন্ট পাওয়া দুই দল পরের রাউন্ডে উঠে যাবে। এরপর এক লেগের নকআউট পর্বে ১৬টি দল লড়বে। এই পর্যায়ে প্রতিটি রাউন্ড হবে নকআউট পদ্ধতিতে। কোয়ার্টার ফাইনাল-সেমিফাইনাল শেষে ফাইনালে দুটি দল লড়বে সোনালি ট্রফি নিজের করে নিতে।
মহারণে প্রতি মহাদেশ থেকে যারা সুযোগ পেয়েছে!
সর্বাধিক ইউরোপ থেকে ১৩ দল অংশগ্রহন করবে এইবারের বিশ্বকাপে। ইতিহাসের সর্বোচ্চ এশিয়া মহাদেশ থেকে ছয় দল বিশ্বকাপে নাম লিখিয়েছে। দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চল থেকে মাত্র চারটি দল, ২০০৬ বিশ্বকাপের পর এবারই প্রথম এমনটা দেখা যাচ্ছে। 
এশিয়া
কাতার (স্বাগতিক), ইরান, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সৌদি আরব ও অস্ট্রেলিয়া।
আফ্রিকা
ক্যামেরুন, ঘানা, মরক্কো, সেনেগাল ও তিউনিসিয়া। 
ইউরোপ
বেলজিয়াম, ক্রোয়েশিয়া, ডেনমার্ক, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, সার্বিয়া, স্পেন, সুইজারল্যান্ড ও ওয়েলস। 
উত্তর আমেরিকা
কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো ও কোস্টারিকা
দক্ষিণ আমেরিকা
আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, ইকুয়েডর ও উরুগুয়ে।
কারা কোন গ্রুপে পড়েছে দেখে নেওয়া যাক!
গ্রুপ এ: কাতার, নেদারল্যান্ডস, সেনেগাল, ইকুয়েডর
গ্রুপ বি: ইংল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, ওয়েলস, ইরান
গ্রুপ সি: আর্জেন্টিনা, পোল্যান্ড, মেক্সিকো, সৌদি আরব
গ্রুপ ডি: ফ্রান্স, ডেনমার্ক, তিউনিসিয়া, অস্ট্রেলিয়া
গ্রুপ ই: জার্মানি, স্পেন, জাপান, কোস্টারিকা
গ্রুপ এফ: বেলজিয়াম, ক্রোয়েশিয়া, কানাডা, মরক্কো
গ্রুপ জি: ব্রাজিল, সুইজারল্যান্ড, সার্বিয়া, ক্যামেরুন

গ্রুপ এইচ:
পর্তুগাল, উরুগুয়ে, ঘানা, দক্ষিণ কোরিয়া।
এবার জেনে নেওয়া যাক বাংলাদেশ সময়ে কোন দিন কার বিপক্ষে কে লড়বে-
গ্রুপ পর্ব
২১ নভেম্বর : সেনেগাল ও নেদারল্যান্ডস (বিকাল ৪টা)
২১ নভেম্বর : ইংল্যান্ড ও ইরান (সন্ধ্যা ৭টা)
২১ নভেম্বর : কাতার ও ইকুয়েডর (রাত ১০টা)
২১ নভেম্বর : যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েলস (রাত ১টা)
২২ নভেম্বর : আর্জেন্টিনা ও সৌদি আরব (বিকাল ৪টা)
২২ নভেম্বর : ডেনমার্ক ও তিউনিসিয়া (সন্ধ্যা ৭টা)
২২ নভেম্বর : মেক্সিকো ও পোল্যান্ড (রাত ১০টা)
২২ নভেম্বর : ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়া (রাত ১টা)
২৩ নভেম্বর : মরক্কো ও ক্রোয়েশিয়া (বিকাল ৪টা)
২৩ নভেম্বর : জার্মানি ও জাপান (সন্ধ্যা ৭টা)
২৩ নভেম্বর : স্পেন ও কোস্টারিকা (রাত ১০টা)
২৩ নভেম্বর : বেলজিয়াম ও কানাডা (রাত ১টা)
২৪ নভেম্বর : সুইজারল্যান্ড ও ক্যামেরুন (বিকাল ৪টা)
২৪ নভেম্বর : উরুগুয়ে ও দক্ষিণ কোরিয়া (সন্ধ্যা ৭টা)
২৪ নভেম্বর : পর্তুগাল ও ঘানা (রাত ১০টা)
২৪ নভেম্বর : ব্রাজিল ও সার্বিয়া (রাত ১টা)
২৫ নভেম্বর : ইরান ও ওয়েলস (বিকাল ৪টা)
২৫ নভেম্বর : কাতার ও সেনেগাল (সন্ধ্যা ৭টা)
২৫ নভেম্বর : নেদারল্যান্ডস ও ইকুয়েডর (রাত ১০টা)
২৫ নভেম্বর : ইংল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র (রাত ১টা)
২৬ নভেম্বর : তিউনিসিয়া ও অস্ট্রেলিয়া(বিকাল ৪টা)
২৬ নভেম্বর : পোল্যান্ড ও সৌদি আরব (সন্ধ্যা ৭টা)
২৬ নভেম্বর : ফ্রান্স ও ডেনমার্ক (রাত ১০টা)
২৬ নভেম্বর : আর্জেন্টিনা ও মেক্সিকো (রাত ১টা)
২৭ নভেম্বর : জাপান ও কোস্টারিকা (বিকাল ৪টা)
২৭ নভেম্বর : বেলজিয়াম ও মরক্কো (সন্ধ্যা ৭টা)
২৭ নভেম্বর : ক্রোয়েশিয়া ও কানাডা (রাত ১০টা)
২৭ নভেম্বর : স্পেন ও জার্মানি (রাত ১টা)
২৮ নভেম্বর : ক্যামেরুন ও সার্বিয়া (বিকাল ৪টা)
২৮ নভেম্বর : দক্ষিণ কোরিয়া ও ঘানা (সন্ধ্যা ৭টা)
২৮ নভেম্বর : ব্রাজিল ও সুইজারল্যান্ড (রাত ১০টা)
২৮ নভেম্বর : পর্তুগাল ও উরুগুয়ে (রাত ১টা)
২৯ নভেম্বর : ইকুয়েডর ও সেনেগাল (রাত ৯টা)
২৯ নভেম্বর : নেদারল্যান্ডস ও কাতার (রাত ৯টা)
২৯ নভেম্বর : ইরান ও যুক্তরাষ্ট্র (রাত ১টা)
২৯ নভেম্বর : ইংল্যান্ড ও ওয়েলস (রাত ১টা)
৩০ নভেম্বর : ডেনমার্ক ও অস্ট্রেলিয়া (রাত ৯টা)
৩০ নভেম্বর : তিউনিশিয়া ও ফ্রান্স (রাত ৯টা)
৩০ নভেম্বর : পোল্যান্ড ও আর্জেন্টিনা (রাত ১টা)
৩০ নভেম্বর : সৌদি আরব ও মেক্সিকো (রাত ১টা)
১ ডিসেম্বর : কানাডা ও মরক্কো (রাত ৯টা)
১ ডিসেম্বর : ক্রোয়েশিয়া ও বেলজিয়াম (রাত ৯টা)
১ ডিসেম্বর : জাপান ও স্পেন (রাত ১টা)
১ ডিসেম্বর : জার্মানি ও কোস্টারিকা (রাত ১টা)
২ ডিসেম্বর : ঘানা ও উরুগুয়ে (রাত ৯টা)
২ ডিসেম্বর : দক্ষিণ কোরিয়া ও পর্তুগাল (রাত ৯টা)
২ ডিসেম্বর : সার্বিয়া ও সুইজারল্যান্ড (রাত ১টা)
২ ডিসেম্বর : ক্যামেরুন ও ব্রাজিল (রাত ১টা) 
নক আউট পর্ব
৩ ডিসেম্বর: এ১ বনাম বি২ (রাত ৯টা)
৩ ডিসেম্বর: সি১ বনাম ডি২ (রাত ১টা)
৪ ডিসেম্বর: ডি১ বনাম সি২ (রাত ৯টা)
৪ ডিসেম্বর: বি১ বনাম এ২ ৪ (রাত ১টা)
৫ ডিসেম্বর: ই১ বনাম এফ২ (রাত ৯টা)
৫ ডিসেম্বর: জি১ বনাম এইচ২ (রাত ১টা)
৬ ডিসেম্বর: এফ১ বনাম ই২ (রাত ৯টা)
৬ ডিসেম্বর: এইচ১ বনাম জি২ (রাত ১টা)
কোয়াটার ফাইনাল
৯ ডিসেম্বর: ই১/এফ২ বনাম জি১/এইচ২ (রাত ৯টা)
৯ ডিসেম্বর: এ১/বি২ বনাম সি১/ডি২ (রাত ১টা)
১০ ডিসেম্বর: এফ১/ই২ বনাম এইচ১/জি২ (রাত ৯টা)
১০ ডিসেম্বর: বি১/এ২ বনাম ডি১/সি২ (রাত ১টা)
সেমিফাইনাল
১৩ ডিসেম্বর: ৯ ডিসেম্বরের ২ বিজয়ী (রাত ১টা)
১৪ ডিসেম্বর: ১০ ডিসেম্বরের ২ বিজয়ী (রাত ১টা) 
তৃতীয় স্থান নির্ধারনী
১৭ ই ডিসেম্বর: ২ সেমিফাইনালের পরাজিত দল (রাত ৯টা)
ফাইনাল
১৮ ডিসেম্বর: দুই সেমিফাইনাল বিজয়ী দল (রাত ৯টা)
খেলাধুলাফুটবলকাতারফিফা বিশ্বকাপ ২২
আরো পড়ুন