Link copied.
যে 'অনুৎপাদনশীল' অভ্যাসগুলো আপনাকে আরও ‘উৎপাদনশীল’ করে তুলবে
writer
৩১ অনুসরণকারী
cover
করোনা মহামারীর এই ক্রান্তিকালে আমরা কিন্তু অনেক নতুনত্ব, ভিন্নধর্মী, অভিনব বিষয়ের সাথে পরিচিত হয়েছি এবং এখনও হচ্ছি। ২০২০ সাল উদ্যোক্তাদের জন্য গ্রাহক আকৃষ্ট করার, প্রযুক্তি ব্যবহারের এবং তাদের প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যাওয়ার পথে নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে এসেছে। অনেক ব্যবসায়ী বড় বড় হোতারা এই পরিবর্তনগুলির সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য নিজেদেরকে চেষ্টার সর্বোচ্চ সীমায় নিয়ে গেছেন। দুর্ভাগ্যক্রমে, সেই নতুন নতুন হরেক পদ্ধতির ব্যবহার মন এবং শরীরের জন্য ক্লান্তিকর, এবং সবচেয়ে উদ্ভাবনী ধারণা খুঁজে পাওয়ার ক্ষেত্রেও বৈপরীত্য দেখা যায়। এমন পরিস্থিতিতে আপনি যদি আরও উৎপাদনশীল হওয়ার উপায় খুঁজে থাকেন, আপনার শক্তি এবং সৃজনশীলতাকে উন্নত করতে এই চারটি "অনুৎপাদনশীল" অভ্যাসগুলো চেষ্টা করতে পারেন এবং আপনার কাজ বা ব্যবসাকে পরের ধাপে এগিয়ে নিয়ে যেতে সহায়তা পেতে পারেন। 
১. ঘুমান বেশি বেশি
cover
কতক্ষণ ঘুমানো উচিত? ঘুমের সময়ের প্রকৃত পর্যাপ্ত পরিমাণ আপনার শরীরের চাহিদার উপর নির্ভর করে, কিন্তু ঘুমানোর লক্ষ্য হল সতেজতা বোধ জাগানো। আপনি যখন ঘুমাচ্ছেন, আপনার শরীর তখন প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণ কাজ সম্পন্ন করছে। আপনার কোষগুলি মেরামত করছে, আপনার মস্তিষ্ক তথ্য প্রক্রিয়া করছে এবং আপনার সহানুভূতিশীল স্নায়ুতন্ত্র শিথিল করছে। যখন আপনি আপনার ঘুমকে সংক্ষিপ্ত করে ফেলছেন, এর অর্থ আপনি নিজের মধ্যেই সংক্ষিপ্ত পরিবর্তন আনয়ন করছেন। আপনি যদি তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠা পছন্দ করেন বা উপভোগ করেন, তাহলে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়ার সময়সূচী তৈরি করে এর মাঝে সামঞ্জস্য করার চেষ্টা করুন। আর আপনি যদি রাত জাগেন এবং দেরি করে ঘুমাতে যান, তাহলে নিজেকে পর্যাপ্ত ঘুমানোর সময় দিন। 
২. নিন প্রচুর বিরতি
cover
যখন আপনি নিজেকে একটি সময়সীমার মধ্যে ফেলে এর সাথে লড়াই করছেন তখন আপনার মস্তিষ্কের জন্য ভুলে যাওয়া সহজ যে কোনটা বা কী উত্তম। আপনি মনে করতে পারেন যে আপনাকে যা করতে হবে তা তৎক্ষণাৎ করা উচিত, কিন্তু ২০১১ সালের ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে একটি কাজে খুব বেশি মনোনিবেশ করা আসলে উৎপাদনশীলতাকেই হ্রাস করে। দ্রুত হাঁটার মতো সহজ কিছু করা আপনার সৃজনশীলতা এবং শক্তি বৃদ্ধি করতে পারে। বিভিন্ন পদ্ধতি এবং কৌশল রয়েছে যা আপনি অনুসরণ করতে পারেন যাতে আপনার সৃজনশীলতা এবং আপনি নিজে চাঙা হতে পারেন। পোমোডোরো কৌশলটিতে প্রতি ২৫ মিনিটে শুরু হওয়া কাজে ব্যক্তিরা বিরতি নেন, তবে অন্যান্য পদ্ধতিগুলি আপনাকে সম্পূর্ণ ৯০ মিনিটের জন্য কাজ করতে হতে পারে। কী আপনার জন্য সবচেয়ে ভাল কাজ করে তা খুঁজে বের করা এবং আপনার শরীর এবং মনের যা প্রয়োজন তা দেয় এমন একটি ক্রিয়াকলাপে নিজেকে যুক্ত করার জন্য নিজেকে যথেষ্ট সময় দিন। একটি বিরতিতে স্ট্রেচিং হতে পারে, অন্য বিরতি স্বাস্থ্যকর জলখাবার খাওয়ার জন্য বা একটি শক্তি সঞ্চয়নী ঘুম বা বিশ্রাম গ্রহণ করার জন্য হতে পারে। 
৩. হাসুন
cover
শিশুরা সারাদিনে অসংখ্যবার হাসতে থাকে, এবং গড় প্রাপ্তবয়স্করা উল্লেখযোগ্যভাবে কম হাসে। হ্যাঁ, স্বাভাবিকতই একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষে পরিণত হওয়া সাথে করে অতিরিক্ত দায়িত্ব এবং চাপ নিয়ে আসতে পারে, তারপরও প্রতিদিন এমন কিছু করার উপায় খুঁজে বের করা গুরুত্বপূর্ণ যা আপনাকে হাসায় এবং আপনাকে আনন্দ দেয়। বেশ কয়েক বছর আগে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা "স্ট্রেস" বা মানসিক চাপ- কে "একবিংশ শতাব্দীর স্বাস্থ্য মহামারী" নামে অভিহিত করেছিল। তারপর থেকে, মহামারীটি কর্মক্ষেত্রে এবং বাড়িতে মানুষের মধ্যে চাপের পরিমাণ বাড়িয়েছে।

মানসিক চাপ মোকাবেলায় সাহায্য করার একটি উপায় হল মন খুলে হাসি। যখন আপনি হাসেন, আপনার শরীর এন্ডোরফিন নামক হরমোন নিঃসরণ করে যা মানসিক চাপ কমায় এবং আপনার মেজাজ ভালো করে দেয়। গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে হাসা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন, আরও বেশি করে এবং প্রাণ খুলে হাসার উপায় খোঁজার চেষ্টা করুন এবং হাসুন বেশি করে। কোন একটি মজার ভিডিও দেখতে বা একজন মজার বন্ধুর সাথে চ্যাট করতে মাত্র কয়েক মিনিট সময় যায় এবং এসবের মাধ্যমেও আপনি নিজেকে আনন্দিত করতে পারেন, হাসাতে পারেন, প্রফুল্ল হতে পারেন এবং অবিলম্বে আপনি এর সুবিধাগুলিও অনুভব করতে, টের পেতে শুরু করবেন। 
৪. কোন কিছুই না করা
cover
আপনার সময়সূচী কি মিটিং, প্রজেক্ট এবং এমন অফুরন্ত ব্যস্ত জিনিস দিয়ে ভরপুর? ক্রমাগত মাল্টি-টাস্কিং, মানে একাধারে এক সময়ে অনেকগুলো কাজ করা এবং একটি বাধাঁধরা সময়সূচী থাকার ফলে আপনি মানসিক এবং শারীরিক দিক দিয়ে অত্যন্ত অভিভূত এবং ক্লান্ত বোধ করতে পারেন। প্রতিদিন শান্ত থাকার জন্য নিজের জন্য কিছু সময় নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আপনার সৃজনশীলতা এবং মনোযোগ বাড়ানোর জন্য ধ্যান আপনার মনকে বিশ্রামের উৎস দিতে একটি কার্যকর উপায় হতে পারে। এটি আপনার চাপ কমাতে এবং নেতিবাচক আবেগ কমাতেও সাহায্য করতে পারে। সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা বা নামাজ এক প্রকার ধ্যান। সময়মতো নামাজ পড়ে নেয়া, পবিত্র গ্রন্থ পাঠ করা, আধ্যাত্মিক রিসাইটেশন শোনাও মানসিক প্রশান্তি বয়ে নিয়ে আসে যা পরবর্তীতে কাজের ক্ষেত্রে উতপাদনশীলতা বাড়িয়ে আপনাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করে সামনের দিকে। মনের প্রফুল্লতা অর্জনই বড় সাফল্য।

আবার সাধারণ যে ধ্যান বা মেডিটেশন বলে আমরা জানি, সেই ধ্যান অনেকসময় অনেকের কাছে ভীতিজনক বা এমনকি কঠিন মনে হতে পারে কারণ আপনার একাজে মনের অসংখ্য চিন্তা ঘুরে বেড়ায়, তবে এখন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে অনেক দুর্দান্ত অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যা আপনাকে এই ধ্যান প্রক্রিয়াটিতে সহায়তা করতে পারে। এছাড়াও, এটি একক সময়ে মাত্র কয়েক মিনিটের জন্য শুরু করা যেতে পারে এবং তারপর আপনি এটি করতে আরো অভ্যস্ত হয়ে যাওয়ার পরে এর জন্য সময়ের পরিমাণ বাড়ানো আপনার জন্য সহায়ক হতে পারে। যদি আপনি ক্রমাগত আরও কিছু করার চেষ্টার চাপে থাকেন, তাহলে আপনাকে কম কাজ করার জন্য উৎসাহিত করা যেতে পারে। আপনার কাজের বা চাকরীর বা ব্যবসার প্রয়োজনীয় আইডিয়াগুলো খুঁজে বের করার চাবিকাঠি নিজের যত্ন নেওয়ার জন্য সময় নেওয়ার মতো সহজ হতে পারে। 

Ridmik News is the most used news app in Bangladesh. Always stay updated with our instant news and notification. Challenge yourself with our curated quizzes and participate on polls to know where you stand.

news@ridmik.news
support@ridmik.news
© Ridmik Labs, 2018-2021