চাকরি ছেড়ে সালমা এখন সফল গরুর খামারি!
এক্সক্লুসিভ
চাকরি ছেড়ে সালমা এখন সফল গরুর খামারি!
মহামারী করোনার সময় চাকরি হারিয়ে দিশেহারা হয়ে গিয়েছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের খাতুন। কিন্তু অদম্য এই নারী বসে থাকার মানুষ ছিলেন না। জমানো টাকায় শুরু করেন গরুর খামার। 
আর তাতেই অর্থনৈতিকভাবে হয়েছেন স্বাবলম্বী। করোনার ধাক্কা কাটিয়ে হয়েছেন একজন সফল খামারী ও উদ্যোক্তা। শুধু তাই নয়, পবিত্র কোরবানি উপলক্ষ্যে সুদূর চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ১০ টি গরু নিয়ে নিজেই চলে এসেছেন চট্টগ্রামের গরুর হাটে। চট্টগ্রাম নগরের বিবিরহাটে গেলেই হাটের একমাত্র নারী ব্যবসায়ী সালমাকে দেখা যাবে। আশপাশের পুরুষ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে তিনিও নিজের গরুর দেখভাল করছেন, সঙ্গে আসা কর্মীদের বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দিচ্ছেন। কখনও আবার হাটে কোরবানির গরু কিনতে আসা ক্রেতাদের সঙ্গে গরুর দাম নিয়ে করছেন আলোচনা করছেন। সালমা জানান, গত দুই বছর ধরে নিজের খামারে গরু পালছেন তিনি। তবে এবারই প্রথম কোরবানির পশুর হাটে গরু আনেন তিনি। নিজ এলাকায় বিক্রি না করে এতদূরে গরু নিয়ে আসার কারণ জানতে চাইলে সালমা বললেন, এখানে বেশ ভালো দামে গরু বিক্রি হয়। তার আশা ১০টি গরুই বিক্রি করে বাড়ি ফিরতে পারবেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ কলেজ থেকে দর্শনে স্নাতক শেষে রাজশাহী কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন সালমা। এরপর ২০১৬ সালে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি নেন তিনি। করোনার কারণে চাকরি চলে গেলে একটি গাভী কিনেন সালমা। প্রথমে কেবল দুধ বিক্রি করতেন। পরবর্তীতে ছয় কাঠা জমির ওপর খামার গড়ে তোলেন। বর্তমানের তার খামারে ২০টি গরু আছে।
এক্সক্লুসিভচট্টগ্রামঈদুল আজহাচাঁপাইনবাবগঞ্জ
আরো পড়ুন