ভবিষ্যতের পৃথিবী: পোকামাকড়ের সভ্যতার কাছে কি হেরে যেতে পারে মানবসভ্যতা?
আন্তর্জাতিক
ভবিষ্যতের পৃথিবী: পোকামাকড়ের সভ্যতার কাছে কি হেরে যেতে পারে মানবসভ্যতা?
সময়টা ১৯১৯ সাল। ক্যালিফোর্নিয়ার পাসাডেনা এলাকার এক রাস্তা ধরে হেঁটে যাচ্ছিলেন একজন তরুণ জ্যোতির্বিদ। রাস্তার এক কোণায় কিছু একটা তার দৃষ্টি আকর্ষণ করল। তিনি পায়ে পায়ে এগিয়ে গেলেন সেদিকে, হাঁটু গেড়ে বসলেন কাছ থেকে দেখার জন্য। অনেকগুলো পিঁপড়া হুটোপুটি করছিল সেখানে। এই পিঁপড়ার স্তুপের দিকে তাকিয়ে জ্যোতির্বিদের মনে মহাকালে মানুষের অবস্থান, কয়েক মিলিয়ন বছর পর পৃথিবীর কপালে কী আছে, কোন কোন দুর্যোগে মহাবিশ্বে মানুষের অস্তিস্ত্ব হুমকির মুখে পড়তে পারে প্রভৃতি বিষয় নিয়ে হঠাৎই একটা দারুণ চিন্তা খেলে গেলো।  
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
এই জ্যোতির্বিদের নাম হার্লো শাপলে। তিনি মাউন্ট উইলসন অবজার্ভেটরিতে কাজ করতেন। মহাশূন্যে উঁকি দিয়ে দেখতেন মিল্কিওয়ে। অবশেষে তিনি সহকর্মীদের সহায়তায় পরিমাপ করেন মিল্কিওয়ের দুরত্ব। তাদের আবিষ্কার আমাদের জানিয়ে দিয়েছিল, প্রিয় গ্যালাক্সির কেন্দ্রবিন্দুতে আমরা বাস করি না এবং মিল্কিওয়ে মহাশূন্যে একমাত্র গ্যালাক্সিও নয়। আমাদের গ্যালাক্সির আশেপাশে আছে আরো অনেক গ্যালাক্সি। শাপলে সবসময় মানবজাতির অনেক অনেক দূরের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবতেন। সাথে ভাবার চেষ্টা করতেন কোন কোন দুর্যোগে মানুষের কপালে দুর্ভোগ জুটতে পারে। এরই অংশ হিসেবে তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এক সেমিনারে বক্তৃতায় বলেছিলেন যে আমাদের ১৯১৮ সালের স্প্যানিশ ফ্লুর মহামারী থেকে শিক্ষা নেয়া দরকার যেন পরবর্তী মাহামারীর সময় আমরা তা কাজে লাগাতে পারি। পৃথিবীর মানুষের উচিত নিজেদের মাঝে যুদ্ধ লাগানোর চেয়ে মানবজাতির কোনো একটি সাধারণ শত্রুর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে মহাবিশ্বে নিজেদের অস্তিস্ত্ব রক্ষায় বেশি মনোযোগ দেয়া। সেটা হতে পারে দারিদ্র, হতে পারে মহামারি। তার বক্তৃতা শেষ হলে মাত্র দুজন মানুষ হাততালি দিয়েছিল। বলাবাহুল্য, শ্রোতাদের কাছে খুব একটা আকর্ষণীয় মনে হয়নি বিষয়টি।  
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
পিঁপড়া নিয়ে শাপলের আগ্রহ ছিল অন্তহীন। মিশরের পিরামিড থেকে পিঁপড়া চুরি, বন্ধুর ঘড়ির মাঝে পিঁপড়া সংরক্ষণ থেকে শুরু করে সোভিয়েত কর্নেলদের জন্য রাখা ভদকার বোতলে পিঁপড়াকে আচার বানিয়ে পরিবেশন করা বা তামাকের পাইপে পিঁপড়া ভরে রেখে পরে ভুলে গিয়ে ধূমপান (নাকি পিঁপড়াপান!) করা - পিঁপড়া নিয়ে তার পাগলামির শেষ ছিল না। শাপলে রাতের বেলায় অবজার্ভেটরিতে মহাশূন্যে তারা দেখতেন, দিনের বেলায় পড়ে থাকতেন পিঁপড়া নিয়ে। খুদে খুদে পিঁপড়ার বিশাল জগত নিয়ে গবেষণা করে তিনি পাবলিশ করেছিলেন পুরো একটি বিজ্ঞান নিবন্ধ। সেই যুগান্তকারী গবেষণায় তিনি বলেন, পিঁপড়ার ঢিবির আশ্চর্য জগত থেকে মানুষের সমাজকে নতুনভাবে বোঝা যেতে পারে। তিনি জানান, জড়বস্তু থেকেও উদ্ভব ঘটতে পারে জীবন ও বুদ্ধিবৃত্তির, কসমিক ইভোলিউশনের কারণে ঘটতে পারে এমন ঘটনা। তার সহকর্মীরা তার পিঁপড়া নিয়ে এত মুগ্ধতাটা বুঝতেন না। তারা ভাবতেন, শাপলে বোধহয় মজা করেই এসব করছেন! বিশাল মহাশূন্যের অসীম সময়ের মাঝে মানুষের ভবিষ্যত নিয়ে তিনি ভাবতেই পারেন! এর মাঝে হতচ্ছাড়া পিঁপড়াকে টেনে আনতে হবে কেন? কিন্ত গত বিশ্বযুদ্ধের সময় শাপলে একাই শুধু পিঁপড়ার দিকে তাকিয়ে বিপর্যস্ত মানবতার সমাধান খোঁজেননি। তার যুগের আরো অনেক বিজ্ঞানীরই মানুষ বাদে অন্যান্য প্রাণীপ্রজাতির প্রতি অদ্ভুত এক ধরনের আগ্রহ আর শ্রদ্ধাবোধ জন্মেছিল। কারণ তারা গবেষণা করে খুঁজে পেয়েছিলেন, সেসব প্রাণী বা পোকামাকড়রা মানুষের অনেক আগেই সভ্যতা গড়ে তুলেছিল! সভ্যতা গড়ে তুলতে হলে কোনো প্রাণীকে মেরুদন্ডী হতে হবে এমন তো নয়, অমেরুদন্ডী প্রাণও গড়তে পারে সভ্যতা। সত্যি বলতে মিলিয়ন মিলিয়ন বছর আগে তারা যখন সভ্যতা বিনির্মাণে কাজ করেছিল, আমাদের মানুষদের তখন খোঁজই ছিল না! 
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
পিঁপড়ার সমাজ নিয়ে এই গবেষণা মহাবিশ্বের এই গ্রহে মানুষ কখন সভ্যতা শুরু করেছিল এবং মানবসভ্যতা কতদিন টিকে থাকা সম্ভব সে সম্পর্কে আমাদের মূল্যবান তথ্য জানায় যা আজ একুশ শতকেও সমান প্রাসঙ্গিক। ১৯১৯ সালে রাস্তার পাশে ময়লার গাদায় হাঁটু গেড়ে বসে শাপলে মূলত "জীবন্ত জীবাশ্ম" র মতো পুরনো একটি সভ্যতার দিকে তাকিয়েছিলেন। যে সভ্যতা মানবসভ্যতার চেয়ে অনেক বেশি পুরনো এবং সমাজ বিনির্মাণে অনেক বেশি দক্ষ। মানুষের স্বল্পায়ুর তুলনায় সামগ্রিক মানবসভ্যতার বয়স অনেক বেশি মনে হতে পারে, বাস্তবে তা সময়ের খুবই ক্ষুদ্র একটি অংশ মাত্র। মানুষের বুদ্ধিমত্তার ধরণ আসলে কেমন তা অন্য কোনো প্রাণীর সাথে তুলনা না করলে আমরা ঠিক বুঝতে পারবো না। অন্য প্রাণীর বুদ্ধিমত্তা আমাদের কাছে একটা আয়নার মতো হতে পারে, যাতে চোখ রেখে আমরা নিজেদের ভুলভ্রুটি দেখতে পারবো। আমাদের আশেপাশে বাস করা অসংখ্য প্রাণীকে "হাবাগোবা" ভাবতে পারি, কিন্তু গবেষণা বলে, অনেক প্রাণীর বুদ্ধির ধার মানুষের ধারণার চেয়ে অনেক অনেক বেশি। সম্প্রতি অক্টোপাসের বুদ্ধিমত্তা অবাক করেছে মানুষকে। অক্টোপাস বিভিন্ন যন্ত্রপাতি অস্বাভাবিক দক্ষতার সাথে ব্যবহার করতে পারে। পাজল মেলানোতেও ভারি পটু তারা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ডলফিনের ভাষা বোঝার ক্ষমতায় মুগ্ধ হয়েছিল। তবে শাপলে বলে গেছেন মৌমাছি, পিঁপড়া, বোলতা, উইপোকার মতো সামাজিক জীবের কথা।

ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
অবশ্য অমেরুদন্ডী প্রাণীদের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে মানুষের ঝোঁক অনেক আগে থেকেই ছিল। ১৩৭৭ সালে বিখ্যাত আরব সমাজতাত্ত্বিক ইবনে খালদুন মৌমাছির সমাজে শাসনব্যবস্থার প্রশংসা করে গেছেন। এনলাইটমেন্ট যুগের পতঙ্গবিজ্ঞানীরা পোকামাকড়ের "আত্মা" আছে মর্মে জোর তর্ক করে গেছেন। আর ইংরেজ বিজ্ঞানী জন লুবাক পোকামাকড় নিয়ে করেছেন উদ্ভট সব কান্ড! ১৮৭৯ সালে টেলিফোন আবিষ্কারকের কাছ থেকে তিনি ধার করলেন একটি মাইক্রোফোন, তারপর তা বসিয়ে দিলেন পিঁপড়ার ঢিবিতে। কারণ তার ধারণা ছিল, পিঁপড়ারা নিজেদের মাঝে খুবই নিচু শব্দে কথা বলে, যা মানুষ শুনতে পায় না। গন্ধের মাধ্যমে পিঁপড়ারা যোগাযোগ করে কিনা এই চিন্তাও উঁকি দিয়েছিল তার মাথায়। এমনকী তার একটি পোষা বোলতা ছিল, যার মৃত্যুসংবাদ ছেপেছিল বিখ্যাত বিজ্ঞান জার্নাল "ন্যাচার"! বুদ্ধিমত্তার প্রসঙ্গ আসলেই প্রথমেই বলা হয় মানুষের কথা, পোকামাকড়কে বিবেচনা করা হয় নিতান্ত অপরিপক্ব জীব হিসেবে। কিন্তু উনিশ শতকে মানুষ জানতে পেরেছিল ছারপোকার সমাজ কত বেশি সুদক্ষ। আর ১৯১১ সালে ডব্লিউ এম হুইলার পিঁপড়ার সংঘবদ্ধ জীবন সম্পর্কে ঘাটাঘাটি করে প্রবর্তন করেন " সুপারঅর্গানিজম" ধারণাটি। অনেকগুলো জীবকোষ মিলে যেমন একটি অর্গানিজম (জীবদেহ) তৈরী হয়, তেমনি অনেক জীব একসাথে মিলে তৈরী করতে পারে সুপারঅর্গানিজম। ১৯১০ সাল ও ২০ এর দশকের পতঙ্গবিজ্ঞানীরা বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন কীভাবে পিঁপড়ারা কৃষিকাজের মাধ্যমে নিজেদের খাবার উৎপাদন করে, ছোট ছোট জীবদের পোষ মানায় এবং মহৎ গুনাবলির চর্চা করে তা দেখে। মহামারীর সময় পিঁপড়ার আক্রান্ত পিঁপড়া নিজেকে দল থেকে আলাদা করে ফেলে এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখে! পৃথিবীতে সভ্যতা টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্রে যদি বেশকিছু জীবের প্রতিযোগিতা হয়, তাহলে সে দৌঁড়ে মানুষকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাবে পিঁপড়াই!

ছবি: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত
বিশ শতকের সায়েন্স ফিকশনে দেখা পাওয়া মাথায় শুংওয়ালা এলিয়েন মোটেও কোন আকস্মিক কল্পনা ছিল না। পোকামাকড়ের বুদ্ধির প্রতি মুগ্ধতা থেকেই মানুষ ভিনগ্রহের বুদ্ধিমান প্রাণীদের চেহারা ধার করেছিল তার নিকটতম প্রতিবেশী পোকামাকড় থেকেই। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মহাশূন্যে এলিয়েনদের প্রতি কোড ল্যাঙ্গুয়েজে সংকেত প্রেরণের ধারণা এসেছিল ডলফিনের কোড ভাঙার ক্ষমতা দেখে। চাঁদের কাল্পনিক বাসিন্দারাও হতো পোকামাকড়ের আকৃতির। এখন প্রশ্ন আসতে পারে, পোকামাকড়ের বিভিন্ন কাজ সুচারুভাবে করার ক্ষমতাকে কি আসলে আমরা বুদ্ধিমত্তা বলবো কিনা। উত্তর পাওয়া যায় ইবনে খালদুনের কাছ থেকেই। তিনি বলে গেছেন, পোকামাকড়ের কাজকারবার কোনো জড় প্রবৃত্তি নয়, নয় অর্থহীন এলেমেলো কিছু। উনিশ শতকের শুরুর দিকের বিজ্ঞানীদের এটা মেনে নিতে বেশ সময় লেগেছে। তারা পাখাওয়ালা কিছু পতঙ্গের চিন্তাভাবনার ক্ষমতা আছে ব্যাপারটায় খুব একটা অবাক হননি। তারা বরং অবাক হয়েছিলেন ভেবে যে কীভাবে তারা মানুষের মতো দারুণ সচল "মগজ" ছাড়াই এতোকিছু করতে পারে। হয়তো ব্যাপারটা বুদ্ধিমত্তা বা প্রবৃত্তির সাথে সম্পর্কিত নয়। হয়তো তারা সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের কোন জ্ঞানের সন্ধান পেয়েছিলেন ।
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
এখন আর সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে মানুষের বিচারবুদ্ধিকে একমাত্র এবং সর্বশ্রেষ্ঠ মনে করার কোন কারণ নাই। হয়তো পোকামাকড়রা পারস্পারিক সহযোগিতার ভিত্তিতে একেবারেই ভিন্ন ধরনের কোন উপায় ব্যবহার করে সফল সমাজ গঠন করে। আঠার শতকের কবিদের কবিতায় এমন ধারণার উল্লেখ আছে। এসব তথ্য থেকে কেউ কেউ অনুসিদ্ধান্তে এসেছেন, আমরা সম্ভবত পিঁপড়ার সমাজের মতো হয়ে যাচ্ছি। একজন জীববিজ্ঞানী মন্তব্য করেছেন, গ্লোবালাইজেশনের সাথে সাথে মানুষ একটি সুপারঅর্গানিজমে পরিণত হয়েছে। বিভিন্ন জাতির মাঝে নানারকম বিনিময়, স্নায়ুতন্ত্রের স্নায়ুকোষের মাঝে তথ্যের বিনিময়ের মতোই। মানে অসংখ্য মানুষ মিলিয়ে একটি বিশালাকার মানুষের কথা কল্পনা করুন যে একাই পুরো পৃথিবীজুড়ে থাকে। এই কল্পনাতীত বিশালদেহী প্রাণীটিকে চালিত করে যে মগজ তা একটি গ্রহের মগজ। একটা গ্রহ শুধু একটি মগজ দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে যার মাঝে আসলে অগণিত প্রকারের, জটিল ধরনের তথ্যের আদানপ্রদান ও সহযোগিতা চলছে। মানুষ না ভেবে এটাকে বিশালাকার একটা জীবাণুর নেটওয়ার্ক কল্পনা করা যায় যারা একাই একটা গ্রহ শাসন করছে। সায়েন্স ফিকশন উপন্যাসে হয়তো পড়ে থাকবেন, আলাদা চেহারা নেই এমন প্রাণীদের মনের একটি নেটওয়ার্কের কথা যাদের মধ্যেকার অস্বাভাবিক ধরনের সহযোগিতা কাজে লাগিয়ে পৃথিবী দখল করে ফেলে আর মানুষকে পৃথিবীর হর্তাকর্তার জায়গা থেকে।
ছবি: ইন্টারনেট
ছবি: ইন্টারনেট
একদলীয় সরকারব্যবস্থার যুগে, পোকামাকড়ের পৃথিবী দখলের ধারণাটিকে রাজনৈতিক প্রচারণায় ব্যবহার করা হয়েছিল। পাশ্চাত্যের লেখকরা সোভিয়েতের দখলদারদের তুলনা করেছেন সর্বগ্রাসী পোকামাকড়ের সাথে। কেউ বলেছেন, পিপড়া প্রাগৈতিহাসিক কোনো মানবসভ্যতার ধ্বংসাবশেষ। তাদের অতিরিক্ত রক্ষণশীলতা তাদেরকে নেতৃত্বের আসন থেকে সরিয়ে দিয়েছে। তারপর তারা হয়ে গেছে ছয়পেয়ে পিপড়া। নানারকম সামাজিক পরিবর্তন থেকে পোকামাকড়ের মহৎ গুণগুলো এসেছিল। সমাজিক জীবনের বহু সমস্যা পিপড়া শুধু চমৎকারভাবেই সমাধান করেনি, করেছে মানুষের মিলিয়ন বছর আগে। এটা একটি বৈপ্লবিক আবিষ্কার ছিল। আঠার শতকের মাঝামাঝি ফসিল আবিষ্কারের পর থেকে কোনো প্রাণী পৃথিবীতে কতদিন বেঁচে ছিল, কবে আবির্ভাব হয়েছিল, তাদের বংশধারা - এসব তথ্য জানা সহজ হলো। ফসিল থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে বোঝা গেছে, পোকামাকড় পৃথিবীর আদি বাসিন্দা। ৩৫০ মিলিয়ন বছর আগে কার্বোনিফোরাস যুগে এসেছিল তেলাপোকারা, ডায়নোসর, ফুলেল উদ্ভিদ, ম্যামালসদের অনেক আগে। ১৮৮০ র দশকে বিজ্ঞানীরা বলে গেছেন, পিপড়ার সমাজ নির্মাণের অভ্যাস এসেছিল ৫ মিলিয়ন বছর আগে। কিন্তু হুইলার ১৯১০ সালে বলেছেন তা আরো পুরনো, ৬৫ মিলিয়ন বছর আগের। আর এতবছর ধরে তা কোনভাবেই পরিবর্তিত হয়নি। মানে মানুষের সভ্যতা পৃথিবীতে একমাত্র সভ্যতা তো নয়ই, সবচেয়ে প্রাচীনও নয়।

ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
১৯১৬ সালে আমেরিকান ব্যঙ্গলেখক ডন মারক্যুইস আর্কি নামের একটা তেলাপোকা চরিত্র তৈরী করেন। আর্কি নিউইয়র্কের নিউজপেপারে কলাম লিখত। ছোট হাতের অক্ষরে লেখা, যতিচিহ্নহীন সেই কলামে আর্কি তার জায়গা থেকে মানবজাতির জন্য উপদেশস্বরুপ মহান সব তত্ত্বকথা কপচে গেছে। আর্কি সবচেয়ে জনপ্রিয় কবিতাটি লিখে গেছে ওয়ার্টি ব্লিগেন্স নামের একটি ব্যাঙকে নিয়ে। ব্লিগেন্সের ধারণা, মহাবিশ্বের কাজ তাকে একটি বসার টুলের ব্যবস্থা করে দেয়া। এজন্যই তা টিকে আছে। হাসবেন না, কারণ আর্কি বলেছে আমরা মানুষের মস্তিষ্কের ভাজে ভাজে একইরকম বোকার মতো চিন্তা বসত গেড়ে আছে। ১৯২২ সালে এক কলামে আর্কি লিখেছে, মহাবিশ্বের বিশালতার কাছে মানুষ বা তেলাপোকা খুবই ক্ষুদ্র। মানুষের এই ক্ষুদ্রতা শাপলের মতো বিজ্ঞানীদের চোখে পড়েছিল বলে তারা ভিন্নভাবে ভাবতে পেরেছিলেন। আর্কি মানুষকে এটাই মনে করিয়ে দিতে চেয়েছে যে, তারা যে শ্রেষ্ঠত্বের অহংকার করে তা নিছক মরীচিকা। আর্কি ও তার পোকামাকড় বন্ধুরা এই পাখাহীন দুপেয়ে প্রাণীদের আত্মম্ভরীতাকে "কসমিক্যালি কমিক্যাল" এবং "স্টেলারলি এবসার্ড" বলে কোরাস ধরে ব্যঙ্গ করে। মহান কবি আর্কি দাবী করে গেছেন, "মানুষ আর পোকামাকড়ের মর্যাদা সমান। আমরা শুধুই কোনো বিশাল তারকাপুঞ্জের ক্ষণস্থায়ী ধূলিকণা মাত্র। " " মানুষ কিছু করে ভাবে বিশাল কিছু করে ফেলেছে। পোকামাকড় হয়তো আগে থেকেই তা জানে। মানুষের কাছে যা বিশাল কোন অর্জন, পোকামাকড়ের কাছে তা একটা স্টান্টের মতো। ও কাজ করতে তাদের ভাবতেও হবে না " আর্কির ভাষ্য।

ছবি: ইন্টারনেট
ছবি: ইন্টারনেট
মানুষের টিকে থাকার জন্য সবসময় প্রযুক্তি আবিষ্কার করতে হয়, তা সেটা কৃষিকাজ করতেই হোক বা উড়তে। পোকামাকড়দের এমন ঝামেলা নাই। তারা পূর্বপুরুষের থেকে পেয়ে আসা সহজাত প্রবৃত্তিকে কাজে লাগিয়ে অভাবনীয় দক্ষতার সাথে টিকে আছে। পোকামাকড়রা সভ্যতার অসংখ্য সমস্যা কোনরকম চিন্তাভাবনা ছাড়াই সমাধান করেছে। হয়তো মানুষের মতো পোকামাকড়ের চিন্তা করতে হয়না বলেই তাদের সভ্যতা স্থায়ী। বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, আমরা মানুষেরা ছারপোকার সক্ষমতার কাছে হয়তো হেরে যাবো। হয়তো দ্রুতই নাম লেখাবো ডায়নোসর আর ডোডোর কাতারে। ১৯০৩ সালে একটি পতজ্ঞবিদ্যার বই ভবিষ্যদ্বাণী করেছিল, বহু বহুকাল পরে, পৃথিবী থেকে মানুষের অস্তিত্ত্ব বিলুপ্ত হয়ে গেলে, সূর্যের কড়া লাল আলোয় রোদ পোহাবে বিষন্ন ছারপোকা। সায়েন্স ফিকশন লেখকদের কল্পনায়ও সুদূরের মহাবিশ্বে মানুষের জায়গা নিয়ে নিয়েছে কোন উইপোকা বা পিঁপড়া। পিঁপড়াদের পরিবেশের সাথে ভারসাম্য বজায় রেখে বাস করার সফলতায় মুগ্ধ হয়ে বিজ্ঞানীরা ঘোষণা করেছিলেন, আমরা বর্তমানে বাস করছি পতজ্ঞের যুগে। ১৯২০ এর দশকের বিজ্ঞনীগণ বলেছিলেন, পৃথিবীতে টিকে থাকার দৌড়ে মানুষের প্রধান প্রতিদ্বন্দী ছারপোকা।
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
জীবজগতের অধিবেশনে পৃথিবীর সেরা জীবগোষ্ঠী নির্বাচনে ভোট চাওয়া হলে, ছোটখাটো পোকামাকড়রা মানুষকে ভোট দেবেনা। এমনকী মেরুদন্ডী প্রাণীরাও দেবেনা কোন ভোট। পৃথিবীর ইতিহাস লেখা হবে তখন নতুনভাবে। সুসজ্জিত কোন নৌবহর, অর্থনৈতিক সক্ষমতা বা শক্তিশালী সাম্রাজ্যের ভিত্তিতে নয়, পোকামাকড়ের সাথে অস্তিত্ত্বরক্ষার দৌড়ে টিকে থাকায় মানুষের দক্ষতার উপর ভিত্তি করে। সুতরাং, পৃথিবীতে একমাত্র শক্তিশালী, সুসভ্য, বুদ্ধিমান জীব হিসেবে মানুষের মর্যাদা ক্ষুন্ন হতে যাচ্ছে। আমাদের আগের প্রজন্ম বলে গিয়েছিলেন, মানুষের মতো বা তারচেয়ে বুদ্ধিমান কোন এলিয়েন এসে হয়তো মানুষের জায়গা দখল করবে। কিন্তু আমরা এখন বুঝতে পারছি পৃথিবীতেই অসংখ্য সুসভ্য জীবের বসবাস আছে। তাদের দেখে অস্বাভাবিক রকম সভ্য মনে হয়, আবার ভিনগ্রহের অধিবাসীদের মতো অদ্ভুত লাগে। কোন একজন প্রাবন্ধিক বলে গেছেন, অন্যান্য জীবপ্রজাতিরা আমাদের একই গ্রহে বসবাসের সুবাদে আত্মীয়, পুরোপুরি অচেনা নয়। কিন্তু পোকামাকড়েরা আমাদের তুলনায় একেবারেই আলাদা। আমাদের বিশ্বাস, মূল্যবোধ বা মানসিকতার সাথে তাদের কোনই মিল নাই। ১৯২০ সালে আমেরিকান কার্টুনিস্ট ক্লেরেন্স ডে ভেবেছিলেন, যদি ক্রাটেশাস যুগে পৃথিবীতে কোন এলিয়েন আসে তাহলে কোন প্রজাতির রাজত্ব দেখবে? 
ছবি: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত
কারা পৃথিবীতে বহুতল ভবন গড়বে? পিঁপড়াকে দেখার সম্ভাবনা বেশি। তার মতে, পিঁপড়াই এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি যোগ্য। এলিয়েনরা আমাদের সম্পর্কে কী ভাবতে পারে তা একটু দেখা যাক। "দ্য আর্থ ডুয়েলার" নামক ব্যাঙ্গাত্নক উপন্যাসে দেখা যায়, ইউরেনাসের বিজ্ঞানীরা টেলিস্কোপে দেখছিলেন বিশ শতকের পৃথিবী। পৃথিবীর পৃষ্ঠে ঘোরাফেরা করা ছোট ছোট প্রাণীগুলোকে ম্যাগনিফাইয়িং গ্লাসে কাছের মাধ্যমে কাছ থেকে দেখতে চাইলেন একজন পতজ্ঞবিজ্ঞানী । জুম ইন করে তিনি পৃথিবীর ফাটলে একটি জীবের শান্তিপূর্ণ বসবাস দেখলেন। এসব ছিল পৃথিবীর শহর। মানুষের স্তুপে বুদ্ধিহীন প্রাণীগুলোর অকারণ নড়াচড়া দেখে তাদের কাছে মনে হলো, এদের মুক্তবুদ্ধির অভাব আছে। এভাবে অন্ধভাবে প্রবৃত্তির অনুসরণের কারণে তাদের কাছে অবর্ণনীয় শ্রম দ্বারা নির্মিত মহান একটি সভ্যতাকে হাস্যকর মনে হলো। এটা থেকে বোঝা যায়, নিজেকে সর্বশ্রেষ্ঠ ভাবার পূর্বানুমান আপনার অচেনা কোনকিছুকে হাস্যকর মনে করে ছুড়ে ফেলে দিতে বাধ্য করবে। হয়তো সেই জটিলতা বোঝার বুদ্ধিই আপনার নেই।
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
বহুবছর ধরে পোকামাকড় তাদের পৃথিবীতে টিকে থাকার সক্ষমতা প্রমাণ করেছে। মানুষ সেখানে সবে বড় পরিসরে সহযোগিতা শুরু করেছে। তবে পোকামাকড় মিলিয়ন মিলিয়ন বছর ধরে যা করেছে, মানুষ তার চিন্তা করার ক্ষমতার বদৌলতে সেসব অর্জন করেছে অনেক দ্রুতগতিতে। পিঁপড়ার জ্ঞান অতীতেই শুধু তাদেরকে দীর্ঘসময় টিকিয়ে রাখেনি, ভবিষ্যতে টিকে থাকার উজ্জ্বল সম্ভাবনা নিশ্চিত করেছে। তবে শাপলে পিঁপড়ার ব্যাপারে যতটাই আশাবাদী ছিলেন, মানুষের ব্যাপারে ছিলেন ততটাই হতাশ। মানুষ একেতো অনভিজ্ঞ, তার উপর আবার তাড়াহুড়াপ্রবণ। সেইসাথে ধ্বংসের প্রতি মানুষের আছে অপ্রতিরোধ্য এক ঝোঁক। এই অদ্ভুত মানসিকতা মানুষকে বিলুপ্তির পথে ঠেলে দিতে পারে। সুদূর ভবিষ্যতে হয়তো দেখা যাবে পৃথিবীর বুকে মানুষের পুরনো কঙ্কালের উপর বসত গেড়েছে বড় বড় তেলাপোকা। ১৯২০ এর দশকে বিজ্ঞানীদের বাণীতেও প্রতিধ্বনিত হয়েছে সেই বার্তা। তাদের মতে, মানুষ বড় বড় শহর বানিয়েছে, আবার পারমানবিক বোমাও বানিয়েছে। এরকম একটা প্রাণীর সমাজে মতবিরোধের ফলে বিদ্রোহের আগুন জ্বলে উঠলে ধ্বংস অনিবার্য। তখন কথাগুলো প্রলাপ মনে হয়েছিল। অবশ্য ১৯২১ সালে আর্কি তার কবিতার শ্লোকে গেঁথেছিল, "একটিমাত্র পরমাণুর শক্তিতে ছিন্নভিন্ন হয়ে যাবে পুরো গ্রহ "। 
ছবি: সংগৃহীত
ছবি: সংগৃহীত
২৪ বছর পর তার সেই অনুমান ঠিকই সত্যি হয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যখন পৃথিবীর বুকে প্রথম পারমানবিক বোমাটা ফাটলো, মানুষের পারস্পারিক সহযোগিতার ধারণাটা কেমন সংকটে পড়েছিল বুঝতেই পারছেন। ১৯৪৬ সালে যুক্তরাষ্ট্র বিকিনি আইল্যান্ডে পারমানবিক পরীক্ষানিরীক্ষা চালানো শুরু করলো। জীবজন্তুর উপর তেজস্ক্রিয়তার প্রভাব কেমন বোঝার জন্য নৌকাবোঝাই গবাদিপশু নেয়া হলো দ্বীপে। বছরখানেক আগে নিউইয়র্কের বাসিন্দারা আরো একজনকে দ্বীপে নিয়ে গিয়ে উড়িয়ে দিতে বলেছিল ; তার নাম আর্কি। আর্কির লেখক ততদিনে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেছেন। তাই আর্কির পক্ষে কথা বলতে এলেন সাংবাদিক ই বি হোয়াইট। তিনি বললেন, "পৃথিবী যখন মাতালের মতো বিকিনি লেগুন পর্যায়ে ধেয়ে যাচ্ছে, আর্কির জ্ঞান তখনো প্রাসঙ্গিক। একশ মিলিয়ন বছর আগেও ছিল, একশ মিলিয়ন বছর পরেও থাকবে। পারমানবিক যুগে পৃথিবীতে যদি কোন প্রাণ টিকে থাকতে পারে তা হবে তেলাপোকা "।
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
১৯২১ সালে আর্কির স্রষ্টা মার্কুইস মঙ্গলের অধিবাসীদের নিয়ে কাল্পনিক এক বিবরণও পেশ করে গেছেন। তিনি বলেন, " মঙ্গলের বাসিন্দারা তাদের টেলিস্কোপের ফুটোয় চোখ রেখে ভূপৃষ্টে নড়াচড়ারত মানুষকে দেখে হয়তো তাদের চেয়ে শক্তিশালী আর বুদ্ধিমান কোন জীব মনে করবে। নিজেদের সবচেয়ে ভালো রুপটাই কয়েকগুন বর্ধিত হয়ে তাদের চোখে ধরা পড়বে। আমরা মানুষরা যেমন ভিনগ্রহের প্রাণীদের হরদম আমাদের চেয়ে সেরা বানিয়ে দিই। " দূরের কোন মঙ্গোলগ্রহীর দৃষ্টিতে পৃথিবীর কোন শহরের স্কাইলাইন হয়তো অনেক সুন্দর লাগবে। কিন্তু পৃথিবীর প্রত্যকজন মানুষ কি তার শহরের আকাশসীমার সৌন্দর্যবর্ধনের কথা মাথায় রেখে নিজেদের বাড়িঘর বানায়? বানায় না। উইপোকার মতো বিশেষ কিছু চিন্তা না করেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে বাড়ি বানায়। মার্ক্যুইস এই বিষয়টাকে মাথায় রেখে বলেছিলেন, দূর থেকে চিন্তা করলে কোন একজন মানুষের কর্মকান্ড নয়, পুরো মানবজাতির অর্জন ধরা পড়বে। তখন শুধু ভালো দিকটা চোখে পড়ে, মানুষের মাঝেকার শত্রুতা, রেষারেষি, গোত্রীয় স্বার্থ মূখ্য হয়ে ওঠেনা। এই ভালো আর খারাপ দিকগুলো কিন্তু একই জায়গা থেকেই আসে। 
ছবি: বিবিসি
ছবি: বিবিসি
একজন ব্যক্তি মানুষকে আলাদা করে দেখলে তাকে বোকা বা স্বার্থপর মনে হতে পারে, কিন্তু তাদের অসংখ্য কাজের সমন্বয়ে গড়ে ওঠে সভ্যতা। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তের চলতে থাকে। শেষে অসংখ্য সভ্যতা মিলে তৈরী করে একটি বিশাল সুসংহত মানবসভ্যতা, যা একটি সাজানো শহরের স্কাইলাইনের মতো সুন্দর লাগে। মানুষের বুদ্ধিমত্তাকে মানুষ হিসেবে বাইরে থেকে বিবেচনা করা কঠিন। তবে আমরা যে পোকামাকড়ের তুলনায় অনভিজ্ঞ তাতে কোন সন্দেহ নাই। অদ্ভুত, ধ্বংসাত্মক কিন্তু সম্ভাবনায় ভরপূর এই জাতির কপালদিগন্তে উঁকি দেয়া দূর্যোগের কালোমেঘ জানিয়ে দিচ্ছে বর্তমান সমস্যাগুলোর সমাধান দ্রুত করতে না পারলে বড়সড় বিপদের মুখোমুখি হতে হবে। কিন্তু যদি মানুষ বর্তমানে টিকে যায়, সুদূর ভবিষ্যেতে মহাকালের বুকে নিজের ঠাঁই করে নিবে। তবে পোকামাকড়ের থেকেও শেখার আছে অনেককিছু। টিকে থাকার জন্য মানবজাতির দরকার একতা, সংকীর্ণ মনোভাব ত্যাগ করা, বৃহত্তর স্বার্থে সংঘবদ্ধ হওয়া। এখনকার যুগ ছত্রাকের গাদায় বুদ্ধিমত্তার সন্ধান, মেশিনের বুদ্ধিমত্তা থেকে পাওয়া নানারকম অদ্ভুতুড়ে ফলাফল আমাদের মানবীয় বুদ্ধিমত্তাকে কোন জায়গায় নিয়ে যাবে তা ভাবার বিষয়। হয়তো আমরা পৃথিবীর নেতৃত্ব বিসর্জন দিয়ে অসংখ্য বুদ্ধমান জীবের ভিড়ে আরেকটি সাধারণ বুদ্ধিমান জীব হিসেবেই টিকে থাকবো, শ্রেষ্ঠত্বের বড়াই থাকবেনা। 
আরও পড়ুন: নান্দনিক স্থাপত্যশৈলীর অনুপম দৃষ্টান্ত পৃথিবীর যে সেতুগুলো
লেখক: সাবরিনা সুমাইয়া
তথ্যসূত্র: বিবিসি
আন্তর্জাতিক
আরো পড়ুন