হাসানাল বলকিয়ান: যার ১১০টি গ্যারেজে রয়েছে দামি ব্রান্ডের ৭ হাজার গাড়ি!
আন্তর্জাতিক
হাসানাল বলকিয়ান: যার ১১০টি গ্যারেজে রয়েছে দামি ব্রান্ডের ৭ হাজার গাড়ি!
ব্রুনাইয়ের বর্তমান সুলতান হলেন, তৃতীয় হাসানাল বলকিয়াহ ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন। তবে গোটা বিশ্ব তাকে হাসানাল বলকিয়াহ নামেই চেনে। মালয়েশিয়া ও দক্ষিণ চীন সাগরে ঘেরা বোর্নিয়ো দ্বীপের ছোট্ট দেশ ব্রুনেইয়ের সুলতান তিনি। দেশটির প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পাশাপাশি একাধিক মন্ত্রণালয়ের প্রধানের দায়িত্বও তার কাঁধেই। তবে সবকিছু ছাপিয়ে তার ধনসম্পদ ও ব্যতিক্রমী জীবনযাপনের কথা শুনলে অনেকেরই চোখ কপালে উঠে!
স্ত্রীসহ তৃতীয় হাসানাল বলকিয়াহ ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন (ছবি: সংগৃহীত)
স্ত্রীসহ তৃতীয় হাসানাল বলকিয়াহ ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন (ছবি: সংগৃহীত)
আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর দাবি, তিনটি বিয়ে করা ব্রুনাইয়ের সুলতানের কাছে ৩০টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়েছে। তার বিলাসবহুল বাসভবনের ঝাড়বাতিগুলোতে লাগানো হয়েছে প্রায় ৫২ হাজার বাল্ব। শুধু তাই নয়, সংবাদমাধ্যমগুলোর দাবি, ব্যতিক্রমী এই সুলতান প্রতিমাসে একবার চুল কাটেন, যাতে তিনি খরচ করেন প্রায় ১৭ লাখ টাকা। 
স্ত্রী-সন্তানসহ ব্রুনাইয়ের সুলতান (ছবি: সংগৃহীত)
স্ত্রী-সন্তানসহ ব্রুনাইয়ের সুলতান (ছবি: সংগৃহীত)
১৯৬৭ সালের ৫ অক্টোবর ব্রুনেইয়ের সিংহাসনে বসেন ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন। দুনিয়াজুড়ে যিনি 'হাসানাল বলকিয়াহ’ নামেই পরিচিত। তবে এই সুলতানের নামের আগে পিছে রয়েছে বেশ লম্বা পদবি। যা বলতে গেলেও আপনাকে থেমে নিঃশ্বাস নিতে হবে। তার পুরোনাম- সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়াহ মুইজ্জাদ্দিন ওয়াদ্দালাহ ইবনি অল-মরহম সুলতান হাজী ওমর আলী সাইফুদ্দিন সা’দুল কাহিরী ওয়াদ্দেন। তার আরও একটি পদবি আছে। তিনি ব্রুনেই দার-উস-সালেমের ইয়াং দি-পার্তুয়ান।
ব্রুনাইয়ের সুলতান (ছবি: সংগৃহীত)
ব্রুনাইয়ের সুলতান (ছবি: সংগৃহীত)
নামের পর এবার তার সম্পত্তি নিয়ে জানা যাক। যিনি চুলের পেছনে প্রতিমাসে ১৭ লাখ টাকা খরচ করতে পারেন, তিনি যে বিপুল সম্পদের মালিক তা নিয়ে সন্দেহ নেই। যদিও তার সম্পত্তি নিয়ে নানা তথ্য একটি ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমে উঠে এসেছে। সংবাদমাধ্যমটির দাবি, হাসানাল বলকিয়াহের মোট সম্পত্তির অর্থমূল্য প্রায় ৩০ বিলিয়ন পাউন্ড। বাংলা মুদ্রায় যা ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৩৬ কোটি টাকা! 
প্রাসাদের ভেতরের সুইমিং পুল (ছবি: ইন্টারনেট)
প্রাসাদের ভেতরের সুইমিং পুল (ছবি: ইন্টারনেট)
ব্যক্তিগত জীবনে এই সুলতান বিয়ে করেছেন তিনটি। নিজের ধনসম্পদকে খরচ করতে কখনও কৃপণতা করেন না সুলতান। নিজের বিলাসবহুল প্রাসাদের পেছনে খরচ করেছেন কোটি কোটি টাকা, আবার নিজের ব্যক্তিগত প্রাইভেট জেট বিমানটিকেও মুড়িয়েছেন খাঁটি সোনা দিয়ে। জানা যায়, এই সুলতানের গ্যারেজে রয়েছে কমপক্ষে ৭ হাজার গাড়ি। 
সোনার রোলস রয়েস (ছবি: ইন্টারনেট)
সোনার রোলস রয়েস (ছবি: ইন্টারনেট)
গ্যারেজে থাকা গাড়িগুলোর মধ্যে ৩৬৫টি ফেরারি, ২৭৫টি ল্যাম্বরগিরি, ২৫৮টি অ্যাস্টন মার্টিন, ১৭২টি বুগাটি, ২৩০টি পোরশা, ৩৫০টি বেন্টলি, ৬০০টি রোলস রয়েস, ৪৪০টি মার্সিডিজ বেঞ্জ, ২৬৫টি অডি, ২৩৭টি বিএমডাব্লিউ, ২২৫টি জাগুয়ার এবং ১৮৩টি ল্যান্ড রোভার!! কী শুনে অবাক হচ্ছেন? অবাক হলেও এটাই সত্যি। আর এই হাজার হাজার গাড়ি রাখার জন্য তৈরি করেছে ১১০টি গ্যারাজ। অনেকের দাবি, সব গাড়ি একসঙ্গে ব্যবহার করতে না পারায় বাড়তি আয়ের জন্য বেশ কিছু গাড়ি তিনি ভাড়া দেন। 
২০ লাখ বর্গফুটের প্রাসাদ (ছবি: ইন্টারনেট)
২০ লাখ বর্গফুটের প্রাসাদ (ছবি: ইন্টারনেট)
গুঞ্জন আছে, ১৯০০ থেকে ২০০০ সালে বিশ্বজুড়ে বিক্রি হওয়া ফেরারির মোট গাড়ির অর্ধেকের বেশি কিনেছিলেন সুলতান হাসানাল বলকিয়াহ ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন। জানা যায়, গাড়ির পাশাপাশি বিমানেরও শখ রয়েছে তার। সংগ্রহে রয়েছে সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার বোয়িং ৭৪৭ বিমান। বিমানটির বেসিন, জানলা, টেবিল সব সোনায় মোড়ানো। এছাড়া বিমানটির আসনগুলোতেও ব্যবহার করা হয়েছে পৃথিবীর সব থেকে দামি চামড়া। 
সোনায় মোড়ানো বিমান (ছবি: ইন্টারনেট)
সোনায় মোড়ানো বিমান (ছবি: ইন্টারনেট)
প্রাসাদ (ছবি: ইন্টারনেট)
প্রাসাদ (ছবি: ইন্টারনেট)
এখানেই সুলতানের বিলাসিতার শেষ নয়। ১৯৮৪ সালে ২০ লাখ বর্গফুটের ইস্তানা নুরুল ইমান নামের একটি প্রাসাদ বানিয়ে গিনেস বুকে নাম লেখান সুলতান। রেকর্ড বলে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রাসাদ এটি-ই। প্রাসাদটিতে আছে ২২টি সোনার গম্বুজ, ৫টি বিশাল সুইমিং পুল, ২৫৭টি বাথরুম এবং প্রায় ২ হাজার বড় রুম। এছাড়া প্রাসাদে রয়েছে নিজস্ব চিড়িয়াখানা। যেখানে রয়েছে ৩০টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারসহ অসংখ্য বাজপাখি, কাকাতুয়াসহ অসংখ্য জীবজন্তু।  
আন্তর্জাতিকএক্সক্লুসিভ
আরো পড়ুন