ঢাবি'র বাসে শ্রমিকদের হামলা, প্রাণে রক্ষা পেল ৪৬ শিক্ষার্থী
জাতীয়
ঢাবি'র বাসে শ্রমিকদের হামলা, প্রাণে রক্ষা পেল ৪৬ শিক্ষার্থী
পাঁচ দফা দাবিতে সিলেটে পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিল পরিবহন শ্রমিকরা। মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দিনভর সেখানে ধর্মঘট পালিত হয়। মঙ্গলবার সারাদিনই লাঠিসোটা হাতে সড়কে অবস্থান করে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে আন্দোলনরত শ্রমিকরা। শ্রমিকদের দ্বারা সৃষ্ট এই নৈরাজ্যের বলি হতে চলেছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ৪৬ জন শিক্ষার্থী। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছে তারা। 
জানা গেছে, মঙ্গলবার সকালে দু'টি এসি বিআরটিসি বাসে বিছানাকান্দি ঘুরতে যায় ঢাবি'র ৯৭ জন শিক্ষার্থী। সন্ধ্যায় ফেরার পথে ৪৬ জন শিক্ষার্থী নিয়ে একটি বাস সালুটিকর এলাকায় পৌঁছালে সেটিকে পেছন থেকে ধাওয়া করে শ্রমিকরা। এসময় বাসটিকে লক্ষ্য করে পেছন থেকে ঢিলও মারে তারা। ছোঁড়া ঢিলের একটি বাসটির পেছনের বামপাশের গ্লাস ভেঙে ভেতরে ঢুকলে সেখানেই দুই শিক্ষার্থী আহত হন।
এতে চালক আরও দ্রুতগতিতে স্থান ত্যাগ করে মালনীছড়া চা-বাগান সংলগ্ন রাস্তায় এলে বাসের হেডলাইট বন্ধ হয়ে যায়। গাড়ি বন্ধ করে যান্ত্রিক ত্রুটি খুঁজতে গিয়ে হেলপার দেখতে পান বাসটি থেকে ধোঁয়া উঠছে। আতঙ্কিত চালক ও শিক্ষার্থীরা দ্রুত বাস থেকে নামতেই সেটিতে আগুন ধরে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কল্যাণে সেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। পরে রাতে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মোহাম্মদ মাঈনুল জাকিরের নেতৃত্বে একটি দল আতঙ্কিত শিক্ষার্থীদের দরগাহ গেটের হোটেল গ্র্যান্ড মোস্তফায় পৌঁছে দেয়। এদিকে, এয়ারপোর্ট থানার ওসি জাকির গণমাধ্যমকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। এছাড়া গাড়িটি গতকাল সিলেট আসার পথে বেশ কয়েকবার ধর্মঘট পালনকারীদের সামনে পড়েছিল বলেও জানান তিনি।
জাতীয়আন্দোলনসিলেটঢাবিআক্রমণ
আরো পড়ুন