Link copied.
ধর্ম
cover

সৌদিতে ওমরাহ পালনের নিয়ম শিথিল

ইসলামধর্ম
১ দিন আগে

ওমরাহ পালনে আগ্রহীদের বুকিং দিতে ১৪ দিন অপেক্ষা করার নিয়ম বাতিল করেছে সৌদি আরব। দেশটির হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তার বরাতে আরব নিউজ এখবর জানিয়েছে। সৌদি মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা ও কৌশল বিভাগের প্রধান ড. আমর আল-মাদ্দাহ জানিয়েছেন, বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করায় মসজিদুল হারামে ওমরাহ ও নামাজ পরিচালনার সক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে বাড়ানো হয়েছে। তিনি বলেন, অগ্রগতির এই পর্যায়ে ওমরাহ পালনে আগ্রহীদের সংখ্যা বাড়ায় হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ১৪ দিন অপেক্ষা করার শর্ত এখন আর প্রযোজ্য না। এতে সবাই সমান সুযোগ পাবেন। গত ১৬ অক্টোবর সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেশজুড়ে বিধিনিষেধ শিথিলের ঘোষণা দেয়। মক্কার মসজিদুল হারাম এবং মদিনার মসজিদে নববীতে পূর্ণ ধারণক্ষমতা অনুযায়ী প্রার্থনা ফের শুরুর নির্দেশনাও দেওয়া হয়।

cover

আরবজাতির ধ্বংস নিয়ে যা বলেছেন মহানবী (সাঃ)

ইসলামধর্ম
২ দিন আগে

আরবজাতির ভবিষ্যত নিয়ে বলে গিয়েছিলেন মুসলিম জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ মানব মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)। জয়নব বিনতে জাহাশ (রা.) বলেন, একবার নবী (সা.) রক্তবর্ণ চেহারা নিয়ে ঘুম থেকে জেগে উঠলেন এবং বলতে লাগলেন, ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ—আল্লাহ ছাড়া কোনো ইলাহ নেই।’ নিকটবর্তী এক দুর্যোগে আরবজাতি ধ্বংস হয়ে যাবে। ইয়াজুজ-মাজুজের প্রাচীর আজ এতটুকু পরিমাণ খুলে গেছে। বর্ণনাকারী নব্বই কিংবা একশ'র রেখায় আঙুল রেখে গিঁট বানিয়ে দেখালেন। জিজ্ঞাসা করা হলো, আমরা কি ধ্বংস হয়ে যাব, অথচ আমাদের মধ্যে নেককার লোকও থাকবে? নবী (সা.) বলেন, হ্যাঁ, যখন পাপাচার বেড়ে যাবে। (বুখারি, হাদিস : ৭০৫৯) অন্য হাদিসে আমর ইবনে ইয়াহইয়া (রা.) বলেন, আমার দাদা আমাকে জানিয়েছেন যে আমি আবু হুরায়রা (রা.)-এর সঙ্গে মদিনায় নবী (সা.)-এর মসজিদে উপবিষ্ট ছিলাম। এ সময় আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি আস-সাদিকুল মাসদুক (সত্যবাদী ও সত্যবাদী হিসেবে স্বীকৃত)-কে বলতে শুনেছি, আমার উম্মতের ধ্বংস কুরাইশের কিছু বালকের হাতে হবে। তখন মারওয়ান বলল, এসব বালকের প্রতি আল্লাহর লানত বর্ষিত হোক। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি যদি বলার ইচ্ছা করি যে তারা অমুক অমুক গোত্রের লোক, তাহলে বলতে সক্ষম। (বুখারি, হাদিস : ৭০৫৮)

cover

যে সাত কারণে মহানবী (সা.) রাগ করেছেন

ইসলামধর্ম
৪ দিন আগে

ব্যক্তিগত কারণে কখনো কারও ওপর রাগ করেননি মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)। তবে আল্লাহর বিধানের ব্যতিক্রম দেখলে তাঁর চেহারায় রাগের ছাপ প্রকাশ পেয়েছে। নিম্নে এমন কিছু বিষয় তুলে ধরা হলো—এক. ঘরে প্রাণীর ছবি রাখা : ইসলামের দৃষ্টিতে প্রাণীর ছবি অঙ্কন এবং তা ঘরে টানিয়ে রাখা হারাম। তাই রাসুল (সা.) তাঁর ঘরে ছবিযুক্ত পর্দা দেখে রাগান্বিত হয়েছিলেন। (বুখারি, হাদিস : ৬১০৯) দুই. নামাজে রোগী-বৃদ্ধদের বিবেচনা না করা: নামাজে রোগী ও বৃদ্ধদের বিবেচনা না করে নামাজ বেশি লম্বা করায়ও মহানবী (সা.) রাগান্বিত হয়েছেন। (বুখারি, হাদিস : ৬১১০) তিন. মসজিদ অপরিষ্কার করা: (বুখারি, হাদিস : ৬১১১)। চার. অহেতুক অতিরিক্ত প্রশ্ন করা: (বুখারি, হাদিস : ৭২৯১)। পাঁচ. নফল নিয়ে বাড়াবাড়ি করা: (বুখারি, হাদিস : ৬১১৩)। ছয়. নবীদের মর্যাদা নিয়ে বিবাদে লিপ্ত হওয়া: (বুখারি, হাদিস : ৩৪১৪)। সাত. জায়েজ বিষয় নিয়ে বাড়াবাড়ি করা (মুসলিম, হাদিস : ৬০০৫)।

cover

বিশ্ব কল্যাণের পথ প্রদর্শক হজরত মুহাম্মদ (সা.): ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

সরকারইসলাম
৮ দিন আগে

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, আমাদের প্রিয়নবি হজরত মুহাম্মদ (সা.) ছিলেন বিশ্ব শান্তি, মানবতা ও কল্যাণের পথ প্রদর্শক। তিনি বঞ্চিত, নিপীড়িত ও লাঞ্ছিত মানবতার আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছিলেন। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বায়তুল মুকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব সাহানে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) ১৪৪৩ হিজরি উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন আয়োজিত ১৫ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, আজকের অশান্ত পৃথিবীতে শান্তি খুঁজে পেতে রসুলুল্লাহ (সা.) এর দেখানো আদর্শ অনুসরণ করতে হবে। আল্লাহ তায়ালা তাকে সারাবিশ্বের রহমত হিসেবে পাঠিয়েছেন।

cover

লক্ষ্মীপূজা আজ

ধর্মহিন্দু
৮ দিন আগে

হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠান শ্রী শ্রী লক্ষ্মীপূজা আজ বুধবার। শারদীয় দূর্গা উৎসবের পর হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান ধর্মী উৎসব এই লক্ষ্মীপূজা। লক্ষ্মী ধনসম্পদ তথা ঐশ্বর্যের দেবী হিসেবে পূজিত হন। এ ছাড়া উন্নতি (আধ্যাত্মিক ও পার্থিব), আলো, জ্ঞান, সৌভাগ্য, দানশীলতা, সাহস ও সৌন্দর্যের দেবীও তিনি। শারদীয় দুর্গোৎসব শেষ হওয়ার পরবর্তী পূর্ণিমা তিথিতে হিন্দু সম্প্রদায় লক্ষ্মীপূজা উদযাপন করে থাকে। হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম এই ধর্মীয় উৎসবটি কোজাগরি লক্ষ্মীপূজা নামেও পরিচিত। রাজধানীর ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির, রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠ মন্দির, রামসীতা মন্দির, পঞ্চানন্দ শিব মন্দির, গৌতম মন্দির, রাধা মাধব বিগ্রহ মন্দির, রাধা গোবিন্দ জিও ঠাকুর মন্দিরসহ বিভিন্ন মন্দির এবং পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার, তাঁতীবাজার, সূত্রাপুর, ফরাশগঞ্জ, লক্ষ্মীবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় লক্ষ্মীপূজার বিভিন্ন ধর্মীয় কর্মসূচি আয়োজন করা হয়েছে।

cover

অমুসলিমদের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় যা বলে ইসলাম

ইসলামধর্ম
৯ দিন আগে

ইসলাম কখনো সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা উসকে দেওয়াকে সমর্থন করে না। যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে থাকে, তারা শুধু ইসলামের শত্রু নয়, বিশ্বমানবতার শত্রু। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ এসব কর্মকাণ্ডকে কঠোর ভাষায় নিষিদ্ধ করেছেন। পবিত্র কুরআন শরীফে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে এবং পৃথিবীতে ফিতনা-ফ্যাসাদ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে সচেষ্ট হয়, তাদের শাস্তি হলো, তাদের হয়তো হত্যা করা হবে, নয়তো শূলে চড়ানো হবে অথবা হাত-পা বিপরীত দিক থেকে কেটে দেওয়া হবে কিংবা তাদের দেশান্তর করা হবে। এটা হলো তাদের পার্থিব লাঞ্ছনা আর পরকালে তাদের জন্য আছে আরো কঠোর শাস্তি।’ (সুরা মায়েদা, আয়াত : ৩৩) নির্দোষ ও নিরাপরাধ অমুসলিমরা মুসলিম দেশে বসবাস করলে সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণ পাওয়া তাদের অধিকার। কোনো অবস্থাতেই তাদের জীবন ও সম্পদের ক্ষতি করা যাবে না। সর্বাবস্থায় তাদের প্রতি মহানুভবতা দেখাতে হবে। ন্যায়বিচার পাওয়া তাদের অধিকার। ইরশাদ হয়েছে, ‘দ্বিনের ব্যাপারে যারা তোমাদের সঙ্গে যুদ্ধ করেনি এবং তোমাদের নিজ দেশ থেকে বিতাড়িত করেনি, তাদের প্রতি মহানুভবতা প্রদর্শন ও ন্যায়বিচার করতে আল্লাহ তোমাদের নিষেধ করেন না। আল্লাহ তো ন্যায়পরায়ণদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : মুমতাহিনা, আয়াত : ৮)। একইভাবে হাদিস শরিফে এসেছে, ‘যে ব্যক্তি কোনো অমুসলিম নাগরিককে হত্যা করল, সে জান্নাতের সুগন্ধিও পাবে না, অথচ তার সুগন্ধি ৪০ বছরের রাস্তার দূরত্ব থেকেও পাওয়া যায়।’ (বুখারি, হাদিস : ৩১৬৬)

cover

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় মহানবী (সা.)-এর আদর্শ

ইসলামধর্ম
১০ দিন আগে

মানবতার নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) তার উম্মতকে সদা নির্দেশ দিয়েছেন তারা যেন ধর্ম, বর্ণ, গোষ্ঠী নির্বিশেষে সবার সঙ্গে উত্তম আচরণ করেন। মহানবীর (সা.) অতুলনীয় জীবনাদর্শ থেকে কয়েকটি দৃষ্টান্ত তুলে ধরার চেষ্টা করব যাতে আমরা সহজেই বুঝতে পারি অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের সাথে তার ব্যবহার কেমন ছিল। হজরত সুফিয়ান ইবনে সালিম রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কোনো মুসলিম যদি অমুসলিম নাগরিকের ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন করে, তার কোনো অধিকারের উপর হস্তক্ষেপ করে; তবে কেয়ামতের দিন আল্লাহর বিচারের কাঠগড়ায় আমি তাদের বিপক্ষে অমুসলিমদের পক্ষে অবস্থান করব।’ (আবু দাউদ) এছাড়াও আবু বকর (রা:) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি অন্যায়ভাবে কোনো অমুসলিমকে হত্যা করবে, আল্লাহ তার জন্য জান্নাত হারাম করে দেবেন।’ শ্রেষ্ঠ মানব রাসুল (সা.) ছিলেন বিশ্বমানবতার মুক্তি দূত। মানুষ হিসেবে তিনি সবার প্রতি ছিলেন উদার ও উত্তম আচরণকারী। প্রতিবেশি যে-ই হোক অর্থাৎ মুসলিম কিংবা অমুসলিম তার অধিকারের ব্যাপারে তিনি ছিলেন সজাগ দৃষ্টিসম্পন্ন। সুতরাং মুসলিম উম্মাহর উচিত, বিশ্বনবির সাম্প্রদায়িত সম্প্রীতির এ উদার নীতি ও দৃষ্টান্ত বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়া। মুসলমানদের লালিত এবং নবীজির সুমহান আদর্শগুলো বিশ্বব্যাপী তুলে ধরা।

cover

রাগ নিয়ন্ত্রণে যা বলেছেন মহানবী (সা.)

ইসলামধর্ম
১০ দিন আগে

ইসলাম মানুষকে রাগ দমন করতে উৎসাহ দিয়েছে। যারা কঠিন রাগের সময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, মহান আল্লাহ তাদের ভালোবাসেন। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘এবং রাগ দমনকারীরা ও মানুষকে ক্ষমাকারীগণ। আল্লাহ অনুগ্রহকারীকে ভালোবাসেন’ (সুরা আলে ইমরান: ১৩৪)। রাসুল (সা.) বলেন, ‘সে ব্যক্তি শক্তিশালী নয়, যে ব্যক্তি কুস্তি লড়ে অন্যকে ধরাশায়ী করে, বরং প্রকৃতপক্ষে সে ব্যক্তিই শক্তিশালী, যে রাগের সময় নিজেকে সংবরণ করতে পারে’ (বুখারি: ৬৮০৯)। রাগ দমনের কিছু পদ্ধতিও ইসলামী শরিয়তে বর্ণিত হয়েছে। যেমন—রাগ মূলত দুটি কারণে হতে পারে, এক. শারীরিক অসুস্থতা, অনিদ্রার কারণে। এর থেকে বাঁচতে পুষ্টিকর খাবার ও পর্যাপ্ত ঘুমের বিকল্প নেই। কখনো কখনো মানসিক কারণেও মানুষের মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়। এ পরিস্থিতি থেকে বাঁচার জন্য কিছু আমল করা যেতে পারে। যেমন, রাগ হলে অজু করা, চুপ থাকা, আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করে 'আউজুবিল্লাহ' পড়া এবং শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন করা।

cover

আগের রূপে ফিরল মসজিদুল হারাম ও মসজিদে নববী

ইসলামধর্ম
১০ দিন আগে

দীর্ঘদিন পরে আবারও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নামাজ আদায়ের সুযোগ পাচ্ছেন মুসল্লিরা। গত শনিবার সৌদি আরবের মিনিস্ট্রি অব হজ অ্যান্ড উমরাহ এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যৌথভাবে জারি করা এক বিজ্ঞপ্তিতে নতুন এই নির্দেশনা দেয়। মক্কার মসজিদুল হারাম (কাবা শরিফ এলাকা) এবং মদিনার মসজিদে নববীতে ধারণক্ষমতার সম্পূর্ণ অংশে মুসল্লিরা যেতে পারবেন ও নামাজ আদায় করতে পারবেন। ওমরাহ, নামাজ, জিয়ারতের জন্য আগের মতোই ওমরাহ কোম্পানি থেকে তাসরিয়া বা তাওক্কালনা অ্যাপের মাধ্যমে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে হবে।

cover

আসন্ন পবিত্র রমজান ও ঈদের সম্ভাব্য তারিখ জানালো বিশেষজ্ঞরা

ইসলামধর্ম
১০ দিন আগে

আসন্ন ২০২২ সালের পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর সম্ভাব্য তারিখ জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। গাল্ফ নিউজের প্রতিবেদনে জানা যায়, বিশেষজ্ঞরা আশা করছে ২০২২ সালে এপ্রিল মাসের কাছাকাছি সময়েই রমজান মাসের চাঁদ উঠবে। আরব ইউনিয়ন ফর অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড স্পেস সায়েন্সেস (এইউএএসএস)-এর জ্যোতির্বিদ ইব্রাহিম আল জার্বান জানান, চাঁদের অবস্থান অনুযায়ী আশা করা যাচ্ছে আগামী এপ্রিলের ২ তারিখ শনিবার থেকে রোজা শুরু হবে। তিনি আরো বলেন- হিসাব অনুযায়ী সোমবার, ২ মে, ২০২২ তারিখে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হতে পারে।

cover

ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের সাথে যে অতুলনীয় আচরণ করতেন মহানবী (সা.)

ইসলামধর্ম
১১ দিন আগে

জাতি, ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে সকল ধর্মের মানুষের সাথে উত্তম আচরণ করতেন মানবতার নবী হজরত মুহাম্মাদ (সা.)। তাঁর জীবনাদর্শ থেকে শিক্ষা নিয়ে সাহাবায়ে কেরামগণও তা অনুসরণ করেছেন। যুগে যুগে তাবেয়ী-তাবেতাবেয়ী, আলেম-ওলামা এবং মুসলিমরাও সেই আদর্শকে ধারণ করেছে। হজরত আনাস ইবনে মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘একদা এক বেদুঈন মসজিদে পেশাব করলো। লোকেরা উঠে (তাকে মারার জন্য) তার দিকে গেল। মহানবী (সা.) বললেন, তার পেশাব বন্ধ করো না। তারপর তিনি (সা.) এক বালাতি পানি আনলেন এবং পানি পেশাবের ওপর ঢেলে দেয়া হল’ (সহিহ বোখারি, কিতাবুল আদব)। মহানবীর (সা.) আদর্শ এতটাই অতুলনীয় ছিল যে তিনি ইহুদীর লাশকেও সম্মান দেখিয়েছেন। (সহিহ বোখারি, হাদিস নং ১৩১১)। হজরত সুফিয়ান ইবনে সালিম (রা.) থেকে বর্ণিত এক হাদিসে তিনি বলেন, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘মনে রেখো যদি কোনো মুসলমান অমুসলিম নাগরিকের ওপর নিপীড়ন চালায়, তার অধিকার খর্ব করে, তার কোনো বস্তু জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়, তাহলে কিয়ামতের দিন আমি আল্লাহর আদালতে তার বিরুদ্ধে অমুসলিম নাগরিকদের পক্ষাবলম্বন করব’ (আবু দাউদ)।

cover

আজ মহানবমী

ধর্মজাতীয়
১৪ দিন আগে

আজ দুর্গাপূজার চতুর্থ দিন। এদিনে শুরু হবে দেবী দুর্গার মহানবমী বিহিত পূজা। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) সকালে মহানবমী ও বিহিত পূজার মাধ্যমে পালিত হবে মহানবমী। এই দিনে আনন্দের মধ্যে বিষাদের ছায়াও পড়বে দেবী ভক্তদের মনে।আগামীকাল শুক্রবার দশমীর দিন করা হবে প্রতিমা বিসর্জন, অশ্রুসিক্ত চোখে ভক্তরা বিদায় দেবেন দেবী দুর্গাকে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে সারাদেশে ৩১ হাজার ৩৯৮টি ও ২০২০ সালে ৩০ হাজার ২১৩টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়। চলতি বছর সারাদেশে ৩২ হাজার ১১৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা উদযাপন করা হচ্ছে। গত বছরের চেয়ে এবার মণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে ১ হাজার ৯০৫টি।

cover

কুমিল্লার ঘটনায় দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুমিল্লাসরকার
১৪ দিন আগে

কুমিল্লার ঘটনায় দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বুধবার (১৩ অক্টোবর) রাতে একটি গণমাধ্যমকেতিনি বলেন, ‘কুমিল্লার ঘটনা.... আমার মনে হয় কেউ ‘সাবোটেজ’ করে করেছে কিনা, এটা দেখার বিষয়।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, এভাবে ঘটনা ঘটানোর সাহস ....বিশ্বাস হচ্ছে না। তারপরেও দেখা যাক... সবকিছু এখন কন্ট্রোল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। উদ্ধার করব প্রকৃত ঘটনা কী?’ তিনি বলেন, ‘প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

cover

স্বজনের লাশ দেখে উচ্চৈঃস্বরে কান্নাকাটি, ইসলাম কী বলে?

ইসলামধর্ম
১৫ দিন আগে

স্বজনের লাশ দেখে কান্নাকাটি করে হা-হুতাশ বা উচ্চৈঃস্বরে কান্নাকাটি করা হয়। শরিয়তে হা-হুতাশ এবং কান্নাকাটি বিষয়ে ইসলামে কী নির্দেশনা রয়েছে? এ বিষয়ে রাসুল (সা.) এর শাফায়াত থেকে বঞ্চিত হয়ে যাওয়ার চরম আশঙ্কা রয়েছে। আমাদের দেশে অনেকেই বলেন, মৃত স্ত্রীকে স্বামী আর মৃত স্বামীকে স্ত্রী দেখতে পারেন না। অথচ শরিয়তে এর কোনো ভিত্তি নেই। অন্যদিকে মৃত পুরুষ হোক অথবা মহিলা হোক সমাজের সমস্ত মাহরাম, গায়রে মাহরাম সবাই দেখে থাকে। এমনকি জানাজার পরও কাফন খুলে মুখ দেখানো হয়, আর স্বজনের লাশ দেখে কান্নাকাটি করে হা-হুতাশ করা হয়। অথচ শরিয়তে হা-হুতাশ এবং উচ্চৈঃস্বরে কান্নাকাটিকে হারাম করা হয়েছে। জানাজা সামনে রেখে এরূপ বলতে শোনা যায় যে, ‘লোকটি কেমন ছিল?’ এর জবাবে লোকেরা বলে, ‘খুবই ভালো ছিল।’ এতে ধারণা করা হয় লোকটি নাজাত পেয়ে যাবে। যদি এরূপ ধারণা সঠিক হয় তাহলে আর আমল করার কী প্রয়োজন? এরূপ করলেই তো চলে! শরিয়তে এর কোনো ভিত্তি নেই।

cover

এবারও ঢাকায় হচ্ছে না কুমারী পূজা

ধর্মজাতীয়
১৫ দিন আগে

মহাসপ্তমী শেষে আজ বুধবার মহাঅষ্টমী। এই অষ্টমীর মূল আকর্ষণ কুমারী পূজা করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারও ঢাকায় হচ্ছে না বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। মহাঅষ্টমীতে রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে সন্ধি পূজা শুরু হবে ও সমাপনী হবে রাত ১২টা ৪২ মিনিটে। তাছাড়া এদিন দুপুরে মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে। মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে গত সোমবার শুরু হয় পাঁচ দিনব্যাপী সর্বজনীন শারদীয় দুর্গোৎসব। বিজয়া দশমীতে দেবী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে আগামী ১৫ অক্টোবর দুর্গোৎসব শেষ হবে।


Ridmik News is the most used news app in Bangladesh. Always stay updated with our instant news and notification. Challenge yourself with our curated quizzes and participate on polls to know where you stand.

news@ridmik.news
support@ridmik.news
© Ridmik Labs, 2018-2021