Link copied.
বন্যা
cover

বন্যায় কুড়িগ্রামে ১ লাখ ৩৫ হাজার কৃষকের ক্ষতি

অর্থনীতিবন্যা
১০ দিন আগে

দেশের সর্ব উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামে এবার শেষ মুহূর্তের বন্যায় ২৬ হাজার ৮০৫ হেক্টর জমি প্লাবিত হয়েছে। এতে ১ লাখ ৩৫ হাজার কৃষকের প্রায় ৩১ কোটি টাকার ফসল নষ্ট হয়েছে। চলতি বছর অতিবৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলসহ নিম্নাঞ্চলগুলো তলিয়ে যায়। বর্তমানে পানি নেমে যাওয়ার পর দৃশ্যমান হচ্ছে আবাদের ক্ষয়ক্ষতি। কৃষকরা জানিয়েছেন, ২২-২৩ দিনের এ বন্যায় রোপা আমনের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের সব রোপা পচে নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে জীবিকা নির্বাহের স্বপ্ন নিভে গেছে তাদের। অন্যদিকে পচা রোপা আমনের ক্ষেতে আর ধান হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আগামীতে কীভাবে বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে উঠবেন তা ভেবেই দিশেহারা কৃষকরা। সরকারি প্রণোদনা না পেলে ঘুরে দাঁড়ানো কঠিন হয়ে উঠবে তাদের জন্য। কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জেলায় এবারের বন্যায় ২৬ হাজার ৮০৫ হেক্টর ফসল পানিতে প্লাবিত হয়। এর মধ্যে রোপা আমন ২ হাজার ৭৯৬ হেক্টর এবং শাকসবজি ৬১ হেক্টর এবং বীজতলার ৬৭ হেক্টর জমি সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েছে।

cover

শরীয়তপুরের ৬০ প্রাথমিক-মাধ্যমিক স্কুলে পানি, পাঠদান হয়নি

বন্যাশিক্ষা
১৫ দিন আগে

জোয়ারের পানি প্রবেশ করায় শরীয়তপুরের ৬০ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক খোলা অনিশ্চত হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে দুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ ও ৫৮ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের মাঠ বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, জেলার সদর উপজেলায় চারটি, জাজিরায় ১৯টি, নড়িয়ায় ২৮টি ও ভেদরগঞ্জ চারটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।

cover

টাঙ্গাইলে ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস নিয়ে অনিশ্চয়তা

টাংগাইলশিক্ষা
১৬ দিন আগে

করোনা ভাইরাসের কারণে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর আগামীকাল রোববার খুলছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এতে আনন্দ বিরাজ করছে শিক্ষক সমাজ ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে। কিন্তু টাঙ্গাইলে বন্যার পানি থাকায় ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রথমদিন পাঠদান দিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর। জেলা শিক্ষা অফিস জানায়, জেলার ১৬২৪টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রয়েছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এখনো (শনিবার পর্যন্ত) ১৫টির শ্রেণী কক্ষে পানি রয়েছে। আর ২৪৫টি বিদ্যালয়ে মাঠে পানি রয়েছে। এর ফলে প্রথম দিন ক্লাস খোলা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

cover

বগুড়ায় যমুনা ও বাঙালি নদীর পানি কমছে, বাড়ছে ভাঙন

বন্যাবগুড়া
১৭ দিন আগে

বগুড়ায় যমুনা ও বাঙালি নদীর পানি কমছে। কিন্তু ভাঙন অব্যাহত আছে বিভিন্ন যায়গার নদীর পাড়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্থানীয় প্রকৌশলীরা বলছেন, পুরো আগষ্ট মাস জুড়েই যমুনা ও এর শাখা নদী বাঙালির পানি বেড়েছিল। শরতের বর্ষন আর ভারতের বাঁধ খুলে দেওয়া ঢলের পানিতে ওই সময় পানি বাড়তে বাড়তে যমুনায় এক পর্যায়ে পানি বিপদসীমার ৬৯ সে.মি. ওপর দিয়ে বয়ে যায়। সেপ্টেম্বরের শুরু থেকেই পানি কমতে থাকে। বর্তমানে পানি প্রবাহ বিপদ সীমার নিচে রয়েছে। তবে তীব্র স্রোতের কারনে ভাঙছে নদীর পাড়। সোনাতলা, সারিয়াকান্দি ও ধুনট উপজেলার ৩০টি পয়েন্টে ভাঙনের তীব্রতা দেখা গেছে।

cover

গাজীপুরে বন্যায় প্লাবিত ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়!

গাজীপুরবন্যা
১৭ দিন আগে

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার বাসুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ কমপক্ষে আরও ২০টি স্কুল সম্প্রতি বয়ে চলা জেলার বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। আজ শুক্রবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, এতে করে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে সরকার ঘোষিত ১২ সেপ্টেম্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা। এ ব্যাপারে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃমোফাজ্জল হোসেন জানান, জেলায় মোট ৭৮১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। কালিয়াকৈরে বন্যার পানিতে ২০টি বিদ্যালয়ে পানি উঠেছে। অন্য উপজেলা গুলোতে কোনো সমস্যা নেই এবং অবস্থা বুঝে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে।

cover

শরীয়তপুরে বন্যায় ৩০ গ্রাম প্লাবিত

বন্যাশরিয়তপুর
২০ দিন আগে

শরীয়তপুরের সুরেশ্বর পয়েন্টে মঙ্গলবার পদ্মা নদীর পানির উচ্চতা ৫২১ সেন্টিমিটার। যা বিপৎসীমার ৭৬ সেন্টিমিটার ওপরে। আগের দিন সোমবার ছিল বিপৎসীমার ৬১ সেন্টিমিটার ওপরে। পানির উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় জাজিরা, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন অন্তত ১০ হাজার মানুষ। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে আজ এসব তথ্য জানা গেছে। জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, বন্যায় প্লাবিত ৩০টি গ্রামের বাসিন্দাদের সহায়তা করার জন্য ৮০০ প্যাকেট শুকনা খাবার, ৭০ মেট্রিক টন চাল, ৩ লাখ টাকা ও ১০০ বান্ডিল টিন বরাদ্দ করা হয়েছে।

coverশীর্ষ খবর

১২ সেপ্টেম্বর খুলছে না বন্যাকবলিত বিদ্যালয়

সরকারবন্যা
২০ দিন আগে

করোনা মহামারিতে দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত হলেও দেশের বন্যাকবলিত এলাকার বিদ্যালয়গুলোতে আগামী ১২ সেপ্টেম্বর শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু করার বাধ্যবাধকতা নেই বলে জানিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর। আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছেন অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক। তিনি বলেন, বন্যাকবলিত এলাকায় যেসব বিদ্যালয় অবস্থিত সেগুলোতে আপাতত শ্রেণিকক্ষে পাঠদান করার প্রয়োজন নেই। তারা পরে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু করবে। পরবর্তীতে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু করার জন্য বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হবে। গত কয়েক দিন থেকে টানা বৃষ্টি এবং উজান থেকে আসা ঢলে দেশের প্রায় দশটি জেলা প্লাবিত হয়েছে। বন্যায় অনেক বিদ্যালয়ে পানি জমে গেছে। বন্যাকবলিত এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

cover

ফরিদপুরে পানি বিপৎসীমার ওপরে ওঠায় ঝুঁকিতে ৩ বিদ্যালয়

বন্যাশিক্ষা
২৩ দিন আগে

পদ্মা নদীর পানি রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে ৮ সেন্টিমিটার বেড়ে শুক্রবার থেকে বিপৎসীমার ৬৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় ফরিদপুরের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ইতিমধ্যে মধুমতী নদীগর্ভে চলে গেছে ১৩৮টি বসতভিটা। ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে তিনটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ইউপি চেয়ারম্যান ইনামুল হাসান বলেন, মধুমতী নদী ভাঙতে ভাঙতে বাজরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে চলে এসেছে। ভাঙন রোধ করা না গেলে স্কুলটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে।

cover

টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি

টাংগাইলবন্যা
২৩ দিন আগে

টাঙ্গাইলের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। আজ যমুনা নদীর পানি স্থিতিশীল থাকলেও ধলেশ্বরী ও ঝিনাইসহ অনান্য নদী পানি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে বিভিন্ন উপজেলার বিস্তির্ণ জনপদ বন্যা কবলিত হয়ে আছে। এসব এলাকায় দেখা দিয়েছে জলাবদ্ধতা। রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি ও ফসলী জমিসহ বিভিন্ন স্থাপনা বন্যার পানিতে তলিয়ে আছে। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে নদী ভাঙ্গনও অব্যাহত আছে।

cover

বন্যার পানি দ্রুত নেমে যাওয়ার আশা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের

বন্যাজাতীয়
২৩ দিন আগে

উজানের ঢলে দেশের নদ-নদীর ২২টি পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে ১৫ জেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। তবে দুর্যেোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর আশা করছে বন্যার পানি খুব দ্রুত নেমে যাবে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আতিকুল হক বলেন, ‘পানি কোথাও বাড়ছে, কোথাও কমছে। আশা করছি, খুব দ্রুত পানি কমবে।’ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া জানান, যমুনা ও পদ্মা অববাহিকায় নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি আগামী ২৪ ঘণ্টা অব্যাহত থাকবে। এ সময় কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর, বগুড়া, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ি, ফরিদপুর ও শরীয়তপুর জেলার নিম্নাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, মৌসুমী বায়ু দেশের উপর মোটামুটি সক্রিয় রয়েছে এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে। এ সপ্তাহের শেষ দিকে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়তে পারে।

cover

টাঙ্গাইলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

বন্যাটাংগাইল
২৭ দিন আগে

টাঙ্গাইল জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা, ধলেশ্বরী ও ঝিনাইসহ অনান্য শাখা নদীর পানি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাধ পয়েন্টে বিপদসীমার ৪১ সেন্টিমিটার, ধলেশ্বরী নদীর পানি এলাসিন পয়েন্টে বিপদসীমার ৫০ সেন্টিমিটার এবং ঝিনাই নদীর পানি বিপৎসীমার ৬৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে, বিভিন্ন নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার বিভিন্ন উপজেলার বেশ কয়েকটি নতুন এলাকা বন্যা কবলিত হয়েছে। পানিতে তলিয়ে আছে এসব এলাকার ঘরবাড়ি, ফসলী জমি।

cover

১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি

বন্যাজাতীয়
২৭ দিন আগে

দেশে বিভিন্ন নদ-নদী পানি বৃদ্ধি ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে ১০ জেলার বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। এসব এলাকার অধিকাংশ ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি পানির নীচে তলিয়ে গেছে। চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। এদিকে ভারতের উজানের পাহাড়ি ঢলে দেশের ছয়টি নদ-নদীর পানি ১৩টি পয়েন্টে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এজন্যে উত্তর, উত্তর-মধ্যাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলের ১০টি জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের বৃষ্টিপাত ও নদ-নদীর অবস্থার প্রতিবেদনে আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়েছে। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি সমতল বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি সমতলে স্থিতিশীল রয়েছে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় উভয় নদ-নদীর পানির সমতল বৃদ্ধি পেতে পারে। অপরদিকে পদ্মা নদীর পানি বাড়ছে। এই পানি বাড়ার ধারা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

cover

যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে

উজানের ঢল ও ভারি বর্ষণের ফলে গেল ২৪ ঘন্টায় টাঙ্গাইলে যমুনা নদীর পানি  ৮ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ৩৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বৃদ্ধির ফলে যমুনার অর্ধশতাধিক চরাঞ্চলসহ টাঙ্গাইল সদর, নাগরপুর, কালিহাতী, ভূঞাপুর ও বাসাইল উপজেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যার পানি প্রবেশ করে নতুন নতুন গ্রাম বন্যার কবলে পড়ছে। সেই সাথে বিভিন্ন এলকায় দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। ভাঙনের ফলে টাঙ্গাইল সদর, কালিহাতী, ভূঞাপুর ও বাসাইলের বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের শতাধিক বসতভিটা, মসজিদ, বাঁধসহ নানা স্থতি হয়েছে।

cover

বাড়ছে যমুনার পানি, ভাঙছে নদীর পাড়

বন্যাজাতীয়
১ মাস আগে

টাঙ্গাইলে যমুনা, ধলেশ্বরী ও ঝিনাই নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে জেলায় বন্যা পরিস্থিতির ক্রমেই অবনতি হচ্ছে। বাধ উপচে পানি প্রবেশ করে তলিয়ে যাচ্ছে একের পর এক নিম্নাঞ্চল। ক্ষতি হচ্ছে ফসলের। বিভিন্ন স্থানে দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন। টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, গেলো ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ১০ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার সাত সেন্টিমিটার, ধলেশ্বরী নদীর পানি চার সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২৩ সেন্টিমিটার ও ঝিনাই নদীর পানি নয় সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৩৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এদিকে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলায় বন্যা পরিস্থিতির ক্রমেই অবনতি হচ্ছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে হাজার হাজার লোকজন। এছাড়াও কয়েক হাজার একর জমির আমন ও সবজিসহ বিভিন্ন ফসল পানির নিচে চলে গেছে। গবাদিপশু নিয়ে কষ্টে দিনপার করছেন বানভাসি মানুষ।

cover

বৃষ্টিতে ফের ডুবল চট্টগ্রাম

বৃষ্টির পানিতে আরেকবার ডুবল চট্টগ্রামের বিভিন্ন নিচু এলাকা। এতে বন্দরনগরীর নিম্নাঞ্চলে আবারও জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে নগরবাসীকে। পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বুধবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। বৃষ্টিতে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ, হালিশহর, ডিসি রোড, প্রবর্তক, কাতালগঞ্জ ও মুরাদপুরসহ নগরীর বিভিন্ন নিম্নাঞ্চলে হাঁটু পানি জমে গেছে। বর্ষণে নগরীর অনেক এলাকায় হাঁটু থেকে কোমরসমান পানি জমে আছে। জলাবদ্ধতার কারণে ঘর থেকে বের হতে পারছেন না অনেকে। অফিসমুখী মানুষকে হাঁটু পানি পার হতে হয়েছে। জলাবদ্ধতার কারণে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক যানজটের।


Ridmik News is the most used news app in Bangladesh. Always stay updated with our instant news and notification. Challenge yourself with our curated quizzes and participate on polls to know where you stand.

news@ridmik.news
support@ridmik.news
© Ridmik Labs, 2018-2021