দেশ-বিদেশের ব্যবসা বাণিজ্য ও অর্থনীতির খবর | Economics and Business News | Ridmik News
অর্থনীতি
দেশে সোনার দাম বাড়লো
দেশের বাজারে সোনার দাম বেড়েছে। মাত্রা এক সপ্তাহের ব্যবধানে সবচেয়ে ভালো মানের সোনার দাম ভরিতে ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। যা এতদিন ছিল ৭৬ হাজার ৫১৬ টাকা। অন্য মানের সোনার দামও প্রায় একই হারে বেড়েছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এমএ হান্নান আজাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আগামীকাল বুধবার (১৮ মে) থেকে নতুন দর কার্য‌কর হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি -বাজুস। নতুন দাম অনুযায়ী, ভাল মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) সোনা কিনতে খরচ পড়বে ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকা। এ ছাড়া ২১ ক্যারেট প্রতি ভরি ৭৪ হাজার ৭০৮ টাকা, ১৮ ক্যারেট প্রতি ভরি ৬৪ হাজার ৩৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি সোনা কিনতে লাগবে ৫৩ হাজার ৩৬৩ টাকা।
চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩ টাকা কেজি আম!
আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঝড়ে গাছ থেকে ঝরে পড়েছে অসংখ্য আম। এতে ছোট-মাঝারি ধরনের অপরিপক্ক এসব আম প্রতি মণ ৮০-২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কেজি ৩-৫ টাকা। এসব আম কম দামে কিনে পাঠানো হচ্ছে রাজধানী ঢাকায়। গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) দেখা গেছে, বিভিন্ন গ্রাম থেকে কম দামে আম কিনে সেগুলো বস্তাভর্তি করে আড়তে নেয়া হচ্ছে। তারপর পাঠানো হচ্ছে রাজধানী ঢাকায়। সদর উপজেলার মহিপুর বাজার, শিবগঞ্জের চককীর্তি, নাচোলের মল্লিকপুর, গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের মকরমপুর ব্রিজ, কাঞ্চনতলা, বোয়ালিয়া বাজার, ঘাটনগর ও মিনিবাজার মোড়ে গ্রাম থেকে আম কিনে জড়ো করা হয়েছে। পরে এগুলো বস্তা ভর্তি করে রাতে ট্রাকযোগে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছে। মকরমপুর ব্রিজের আম ব্যবসায়ী হামিদ খান জানান, আশ্বিনা, লক্ষণভোগ ৩-৪ টাকা আর ফজলি আম ৫ টাকা কেজি দরে কিনেছেন। গোমস্তাপুর উপজেলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার বলেন, সোমবার রাতে উপজেলাজুড়ে হালকা ঝড় হয়েছে। এতে আম ও লিচুর কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। তবে ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা যায়নি। বোয়ালিয়া ইউনিয়নে ক্ষতির পরিমাণ বেশি বলে জানান তিনি।
শিগগিরই চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে আসবে: খাদ্যমন্ত্রী
শিগগিরই চালের দাম সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। বুধবার (১৮ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এখন মৌসুমের শেষ ও শুরুর সন্ধিক্ষণ। মিলওয়ালাদের ধান এখনও চাতালে। তারা উৎপাদনে যায়নি। এছাড়া বৃষ্টির জন্য ধান শুকাতে ২ দিনের বদলে ৫-৭ দিন লাগছে। তবে চিন্তার কিছু নেই। খুব শিগগিরই দাম সহনীয় হবে। দেশে খাদ্য ঘাটতির সম্ভাবনা নেই জানিয়ে তিনি বলেন, চালের জোগান কম নেই। ভারত প্রতিবেশী দেশের জন্য গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়নি। আমরা চিঠি দিয়েছি। গম নিয়ে চিন্তা নেই।
বাংলাদেশে গম রফতানি বন্ধ করেনি ভারত: বাণিজ্যমন্ত্রী
ভারত বাংলাদেশে গম রফতানি বন্ধ করেনি বলে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, জি টু জি বন্ধ হয়নি। শতভাগ গম আমদানি করা যাবে। তাদের এক্সপোর্ট বন্ধ করা কোনোভাবেই আমাদের ওপর প্রভাব পড়বে না, এটা রাষ্ট্রদূত জানিয়েছেন। ব্যবসায়ীরা এটা বলে মানুষকে ভয় দেখাচ্ছেন। বুধবার (১৮ মে) দ্রব্যমূল্য পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাস্কফোর্স কমিটির দ্বিতীয় সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। ব্রাজিলসহ পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকেও গম আনা হবে বলেও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী। তেলের ঘাটতি পূরণে সরকার রাইস ব্র্যান থেকে তেল উৎপাদনের চিন্তা করছে জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, ‌‘এ প্রক্রিয়ায় ৭ লাখ টন তেল উৎপাদন সম্ভব। তাহলে চাহিদার ২৪ ভাগ পূরণ হয়ে হবে।’ বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভোজ্য তেলের বাজারে সমস্যা হবে না। এটা বাজারে চাহিদা অনুযায়ী আছে। গত ৫ মে তেলের যে দাম ঠিক করে দেয়া হয়েছিল, তখন ব্যবসায়ীরা বলেছিলেন, সাপ্লাই ঠিক আছে। কিন্তু মাঝখানে সেটা ঠিক ছিল না, তবে এখন সাপ্লাই ঠিক হয়ে গেছে।’
খোলা ট্রাকে আর পণ্য বিক্রি করবে না টিসিবি
স্থায়ীভাবে বন্ধ হচ্ছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) উন্মুক্ত ট্রাকসেল। শুধু ডিলারদের নির্দিষ্ট দোকান থেকে সাশ্রয়ী মূল্যে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হবে। তবে সবাই তা পাবেন না। সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ ও ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দেয়া ‘ফ্যামিলি কার্ডধারী’ ব্যক্তিরাই শুধু কিনতে পারবেন। কেনা যাবে মাসে সর্বোচ্চ দুইবার। বুধবার (১৮ মে) টিসিবির মুখপাত্র হুমায়ুন কবির এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, ডিলারদের অনিয়ম এবং ক্রেতাদের কালোবাজারি বন্ধ করতেই সরকার নীতিগত ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টিসিবির পণ্য এখন থেকে ট্রাকসেলে না দিয়ে টিসিবির নির্দিষ্ট দোকানগুলোতে বিক্রির জন্যে দেয়া হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে নির্ধারিত দোকানে এসব পণ্য বিক্রি করা হবে। জেলাসদরগুলোতেও প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে দোকান থাকবে।
দ্রব্যমূল্যের অস্থির পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের সতর্ক হওয়ার নির্দেশ
বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্য নিয়ে অস্থির পরিস্থিতি চলছে। তাই ব্যবসায়ী নেতাদের যার যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ সতর্ক হওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন বানিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ। বুধবার (১৯ মে) দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দ্রব্যমূল্য ও বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত টাষ্কফোর্স কমিটির ২য় সভার শুরুতে তিনি এ নির্দেশ দেন। বাণিজ্য সচিব বলেন, বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্য অস্থির অবস্থা চলছে। অনেক পণ্যের ঘাটতিও আছে। বাড়ছে দামও। তবে সে দিক থেকে বাংলাদেশ এখনো বেশ স্বস্তিতেই রয়েছে। দেশে যা হয়েছে সেটি কিছু ব্যবসায়ীর অপতৎপরতার কারণেই। যার দায় পুরো ব্যবসায়ী সমাজের উপর পড়ছে। সরকার সে দিক থেকে সতর্ক রয়েছে। এখানে যা করার করছে। তবে শঙ্কা কাটেনি। সামনে কোরবানির ঈদ। সেখানে পেঁয়াজ, আদা রসুন, ভোজ্যতেল সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে হবে। ভবিষ্যতে এসব পণ্য মজুদ করে কেউ যাতে সুযোগ নিতে না পারে সে জন্য যার যার জায়গা থেকে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন রয়েছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩ টাকা কেজি আম!
আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঝড়ে গাছ থেকে ঝরে পড়েছে অসংখ্য আম। এতে ছোট-মাঝারি ধরনের অপরিপক্ক এসব আম প্রতি মণ ৮০-২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কেজি ৩-৫ টাকা। এসব আম কম দামে কিনে পাঠানো হচ্ছে রাজধানী ঢাকায়। গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) দেখা গেছে, বিভিন্ন গ্রাম থেকে কম দামে আম কিনে সেগুলো বস্তাভর্তি করে আড়তে নেয়া হচ্ছে। তারপর পাঠানো হচ্ছে রাজধানী ঢাকায়। সদর উপজেলার মহিপুর বাজার, শিবগঞ্জের চককীর্তি, নাচোলের মল্লিকপুর, গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের মকরমপুর ব্রিজ, কাঞ্চনতলা, বোয়ালিয়া বাজার, ঘাটনগর ও মিনিবাজার মোড়ে গ্রাম থেকে আম কিনে জড়ো করা হয়েছে। পরে এগুলো বস্তা ভর্তি করে রাতে ট্রাকযোগে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছে। মকরমপুর ব্রিজের আম ব্যবসায়ী হামিদ খান জানান, আশ্বিনা, লক্ষণভোগ ৩-৪ টাকা আর ফজলি আম ৫ টাকা কেজি দরে কিনেছেন। গোমস্তাপুর উপজেলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার বলেন, সোমবার রাতে উপজেলাজুড়ে হালকা ঝড় হয়েছে। এতে আম ও লিচুর কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। তবে ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা যায়নি। বোয়ালিয়া ইউনিয়নে ক্ষতির পরিমাণ বেশি বলে জানান তিনি।
আর্থিক গোপনীয়তা সূচকে বিশ্বে বাংলাদেশ ৫৪তম
আর্থিক গোপনীয়তা সূচকে ১৪১ দেশের মধ্যে ৫২তম অবস্থানে বাংলাদেশ। গত দুই বছরে দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশের র‍্যাঙ্কিং। বছরে দুইবার এ সারণী সূচক প্রকাশ করে ট্যাক্স জাস্টিস নেটওয়ার্ক (টিজেএন)। মঙ্গলবার (১৭ মে) প্রকাশিত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ফিন্যান্সিয়াল সিক্রেসি ইনডেক্স বা এফএসআই সূচকে বাংলাদেশের স্কোর ২৩২। একটি দেশের আইনি ব্যবস্থা অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীদের কতটুকু আর্থিক গোপনীয়তার সুযোগ করে দিয়েছে, সেটি এখানে হিসাব করা হয়েছে আইনি গোপনীয়তার স্কোর এবং বৈশ্বিক তুলনার পরিমাপকের সাহায্যে।
কাঁচা পেঁপের দাম বেড়ে কেজি ৮০ টাকা
রাজধানীর বাজারগুলোতে পেঁপের সরবরাহ একদমই কমে গেছে। এতে প্রতি কেজি পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। সবজি ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিভিন্ন সময় পেঁপের দাম বেড়েছে, আবার কমেছে, কিন্তু কখনো ৮০ টাকায় পৌঁছায়নি। মূলত বাজারে পেঁপের সরবরাহ কম থাকার কারণেই এই দামে বিক্রি হচ্ছে বলে জানান খুচরা ব্যবসায়ীরা। গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) রাজধানীর বেশ কিছু বাজারে গিয়ে সবজির বেশির ভাগ দোকানেই পেঁপে পাওয়া যায়নি। দু-একটি দোকানে পেঁপে থাকলেও দামে আগুন। ৭০-৮০ টাকার নিচে বিক্রি করছেন না খুচরা ব্যবসায়ীরা। এক সবজি বিক্রেতা বলেন, কারওয়ান বাজারে পেঁপের সরবরাহ কম থাকায় পাইকারি বাজারেই দাম অনেক বেশি। আমাদেরই ৬০ টাকা কেজি পাইকারি কিনে আনতে হচ্ছে। জানা গেছে, কাঁচা পেঁপে বারোমাসি সবজি হলেও বর্তমানে নরসিংদীর পাইকারি ও খুচরা সবজির হাটগুলোতে সংকট দেখা দিয়েছে। মৌসুম না হওয়ায় পাইকারি হাটগুলোতে চাহিদার তুলনায় জোগান একেবারেই কম। এতে যে পরিমাণ পাওয়া যাচ্ছে তা চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। নরসিংদীর পাইকারি ও খুচরা সবজি বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি কেজি কাঁচা পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা। তবে ছোট আকারের পেঁপে ৫-১০ টাকা কম দামে বিক্রি হচ্ছে।
বাংলাদেশি টাকায় বিভিন্ন দেশের মুদ্রার মান (১৮ মে, ২০২২)
বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। অথচ বিদেশি কোন মুদ্রার কী মান তা অনেকের কাছে অজানা। বিদেশ থেকে টাকা পাঠানোর সময় মানি একচেঞ্জ বা মুদ্রা বিনিময় করতে বিদেশি টাকার মান জানা না থাকার কারণে অনেকেই পড়েন বিপাকে। এখানে বৈদেশিক মুদ্রা বাংলাদেশি টাকায় পরিবর্তন করা হলে বাংলাদেশি টাকায় যে মূল্য পাওয়া যাবে তা উল্লেখ করা হলো।
আজ রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ
আমাদের প্রতিদিনই জরুরি প্রয়োজনে কোথাও না কোথাও যেতে হয়। আসুন জেনে নেই বুধবার (১৮ মে) রাজধানীর কোনো কোনো এলাকার দোকানপাট ও মার্কেট বন্ধ থাকবে।
গম রফতানির নিষেধাজ্ঞা শিথিল করেছে ভারত
গম রফতানির ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করেছে ভারত। মঙ্গলবার (১৭ মে) ভারতীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে গম রফতানির নিষেধাজ্ঞার কথা জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, গত ১৩ মে বা তার আগে পাওয়া এলসির বিপরীতে গম রফতানির অনুমতি দেয়া হবে। কাস্টমসের পরীক্ষায় যেসব রফতানির আদেশ ১৩ মের আগে পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত হওয়া যাবে সেগুলো আটকানো হবে না। এতে বলা হয় মিশরগামী একটি গমের চালানকে এরই মধ্যে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এর ফলে কান্ডালা বন্দরে গম জাহাজবোঝাইয়ের কাজ চলছে। চালানটি ছাড়ের জন্য মিশর সরকারের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছিল। এর আগে গত ১৩ মে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারে গমের রেকর্ড মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে শস্যটি রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।
এবার জিআই সনদ পেলো বাগদা চিংড়ি
বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ির মান বিশ্বের মধ্যে অন্যতম একটি কোয়ালিটি। এর কালার, ফ্লেভার খুবই ভালো। এবার ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে জিআই সনদ পেয়েছে বাগদা চিংড়ি। জানা গেছে, সম্প্রতি পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদফতর এ স্বীকৃতি প্রদান করে। বিষয়টি নিশ্চিত করে অধিদফতরের রেজিস্ট্রার জনেন্দ্র নাথ সরকার বলেন, দশম পণ্য হিসেবে ভৌগোলিক নির্দেশক সনদ পেয়েছে বাগদা চিংড়ি। গত ২৪ এপ্রিল আনুষ্ঠানিকভাবে নিবন্ধন সনদ দেয়া হয়। এর সঙ্গে ফজলি আমও সনদ পাওয়ার কথা ছিল। তবে সেটি এখনও শুনানি পর্যায়ে রয়েছে। মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক খ. মাহবুবুল হক বলেন, বাগদা চিংড়ি জিআই সনদ পেয়েছে। তবে অন্যান্য পণ্যের ক্ষেত্রে যেভাবে আনুষ্ঠানিকভাবে সনদটি রিসিভ করি এবার কিন্তু তারা ডাকযোগে সনদটি পাঠিয়েছে। জিআই সনদ পেলে পণ্যের ভালো ব্র্যান্ডিং হয়। জিআই সনদ পাওয়ার ফলে এটি আমাদের হয়ে থাকলো। এমনিতেও এই চিংড়ির দাম অন্যান্য চিংড়ির তুলনায় বেশি, তবে সামনে সেটি আরও বাড়বে। গলদা চিংড়ি নিয়েও কাজ করা হবে।
দেশে সোনার দাম বাড়লো
দেশের বাজারে সোনার দাম বেড়েছে। মাত্রা এক সপ্তাহের ব্যবধানে সবচেয়ে ভালো মানের সোনার দাম ভরিতে ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। যা এতদিন ছিল ৭৬ হাজার ৫১৬ টাকা। অন্য মানের সোনার দামও প্রায় একই হারে বেড়েছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এমএ হান্নান আজাদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আগামীকাল বুধবার (১৮ মে) থেকে নতুন দর কার্য‌কর হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি -বাজুস। নতুন দাম অনুযায়ী, ভাল মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) সোনা কিনতে খরচ পড়বে ৭৮ হাজার ২৬৫ টাকা। এ ছাড়া ২১ ক্যারেট প্রতি ভরি ৭৪ হাজার ৭০৮ টাকা, ১৮ ক্যারেট প্রতি ভরি ৬৪ হাজার ৩৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি সোনা কিনতে লাগবে ৫৩ হাজার ৩৬৩ টাকা।
শনিবার ব্যাংক খোলা থাকবে
হজ ব্যবস্থাপনার সুবিধার্থে আগামী শনিবার (২১ মে) সাপ্তাহিক ছুটির দিন ব্যাংক খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই দিন হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা ও উপশাখা পূর্ণ দিবস খোলা রাখতে হবে। মঙ্গলবার (১৭ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব অফ-সাইট সুপারভিশন এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠিয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হজ ব্যবস্থাপনার সুবিধার্থে শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন পূর্ণ দিবস পর্যাপ্ত নিরাপত্তা নিশ্চিত করে হজ কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের শাখা ও উপশাখা খোলা রাখতে হবে। ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১-এর ৪৫ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে জনস্বার্থে এ নির্দেশ জারি করা হলো বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
আগামী বাজেটে পরিবহন ও যোগাযোগ খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ
২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেতে যাচ্ছে পরিবহন ও যোগাযোগ খাত। এই খাতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৭০ হাজার ৬৯৬ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ২৮ দশমিক ৭৩ শতাংশ। আগামী অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আকার সংশোধিত এডিপির চেয়ে ১৭ শতাংশ বাড়িয়ে প্রায় দুই লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা নির্ধারণ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। আসন্ন বাজেটে অভ্যন্তরীণ উৎস হতে অর্থায়ন হবে ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬৬ কোটি ৯ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক উৎস হতে অর্থায়ন হবে ৯৩ হাজার কোটি টাকা।
'১০ বছরে বিদ্যুৎ খাতে ১২ বিলিয়ন বিনিয়োগ হয়েছে'
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিদ্যুৎ-জ্বালানি খাতে বিনিয়োগকে সরকার উৎসাহিত করছে। বেসরকারি খাতকে উৎসাহিত করায় গত দশকে বিদ্যুৎ খাতে ১২ বিলিয়ন বিনিয়োগ হয়েছে এবং আগামী ১২ বছরে ৫০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বেসরকারি খাত হতে শতকরা ৪৪ ভাগ আসছে। নবায়ণযোগ্য বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ৫টিই বেসরকারি খাতের। মঙ্গলবার (১৭ মে) একটি অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, বেসরকারি খাতের জন্য পলিসি গাইডের খসড়া তৈরি করা হয়েছে, যার মাধ্যমে ন্যাশনাল গ্রিড বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ব্যবহার করা যাবে। বিনিয়োগে নিরাপত্তাসহ ১৫ বছরের ট্যাক্স ওয়েবার, আমদানি শুল্কে রেয়াতসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দেয়া হচ্ছে।