অন্যরকম ও বিশেষ সংবাদ | Exclusive News | Ridmik News
এক্সক্লুসিভ
উরু গোত্র: সহস্র বছর ধরে যে জাতি ভাসমান দ্বীপের বাসিন্দা!
এদের খাবারের প্রধান কাঁচামাল আসে নলখাড়ার শিকড় থেকেই। দ্বীপের নিচের স্তরের নলখাগড়া খুব তাড়াতাড়ি পচে যায়। ফলে, দুই সপ্তাহ থেকে ৩ মাসে একবার দ্বীপের উপরিভাগ নতুন নলখাগড়ায় ছেয়ে দেয়া হয়। উরু গোত্র কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে ভাসমান দ্বীপগুলোকে টিকিয়ে রাখে। এখানকার নারীরা পুরুষদের তুলনায় অধিক পরিশ্রমী এবং দক্ষ।
স্ত্রী বহন দৌড়: ১০ শতাব্দী ধরে চলে আসা যুগলদের ঐতিহ্যবাহী প্রতিযোগিতা!
ভাইকিংদের মাঝে নবম থেকে একাদশ শতাব্দীতে প্রাচীন এই দৌড় প্রতিযোগিতার সূচনা হয়েছিল। কিন্তু আধুনিক যুগে নব্বইয়ের দশকে পুনরায় এই প্রতিযোগিতা শুরু করা হয়। নতুন করে ফিনল্যান্ডে খেলাটি চালু হয়। ইউরোপের আরেক দেশ এস্তোনিয়াতেও রয়েছে এই খেলার জনপ্রিয়তা। তবে সেখানে খেলার ধরনটা একটু ভিন্ন। সেখানে স্ত্রীকে উল্টো করে তুলে স্বামীদের দৌড়াতে হয়। এ ভঙ্গিতে স্ত্রীর পা থাকে স্বামীর কাঁধের ওপর।
মেয়েকে বড় করতে ৩৬ বছর ধরে পুরুষ সেজে আছেন তিনি!
ভারতের তামিলনাড়ুর 'পুরুষশাসিত সমাজে' মেয়েকে বড় করার জন্য নিজেকে ৩০ বছর ধরে পুরুষের ছদ্মবেশে রেখেছিলেন ৫৭ বছর বয়সী এই নারী। বিয়ের মাত্র ১৫ দিনের মাথায় স্বামীকে হারান এস পেচ্চিয়াম্মাল। তখন তার বয়স মাত্র ২০ বছর। কাতুনায়াক্কানপট্টি গ্রামের সমাজ ছিল পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা। এই কঠিন পুরুষতান্ত্রিক সমাজে এক কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন তিনি।
একসঙ্গে অন্তঃসত্ত্বা একই হাসপাতালের ডাক্তারসহ ১১ নার্স!
সম্প্রতি আমেরিকার মিসৌরি হাসপাতালে এক অদ্ভুদ ঘটনা ঘটেছে। সেখানে একসঙ্গে একই হাসপাতালের ১১ জন কর্মী অন্তঃসত্ত্ব হয়েছেন। শুধু তাই নয় ওই ১১ জন আবার একই বিভাগে কাজ করেন। ওই ১১ জনের মধ্যে এক চিকিৎসক বাদে সকলেই নার্সের কাজ করেন। তবে এদের মধ্যে আবার দুজন নার্সের একই সময়ে সন্তান জন্মের তারিখও নির্ধারণ করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। মিসৌরির লিবার্টি শহরের এ ঘটনা চাউর হতেই তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মন্তব্যের ঝড় উঠেছে। অনেকেরই প্রশ্ন, ‘ওই হাসপাতালের পানিতে কিছু মেশানো নেই তো?’ লিবার্টি হাসপাতালের ওই হবু মায়েরা অবশ্য জানিয়েছেন, তারা প্রত্যেকেই বাড়ি থেকে পানি নিয়ে আসেন। লিবাটির ওই হাসপাতালে নর্থল্যান্ড ওবস্টেস্ট্রিকস অ্যান্ড গাইনোকোলজি বিভাগের নার্স হানা মিলার ওই ১১ জনের মধ্যে রয়েছেন। ‘গুড মর্নিং আমেরিকা’ শোয়ে তিনি জানিয়েছেন, একসঙ্গে ১১ জন অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘটনা নিয়ে যা সব রসিকতা শুরু হয়েছে, সেগুলোকে অনেকেই আবার সত্যি বলে ধরে নিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনার পর আমাদের বিভাগের বহু নার্সই বলাবলি করছেন, তারা আর হাসপাতালের পানি খাবেন না। এক জন নার্স তো আবার বাড়ি থেকে পানির বোতল আনতে শুরু করে দিয়েছেন।
বাজাউ: সমুদ্রের গভীরে বসবাসকারী এক বিচিত্র জাতি
এই জাতির শিশুরা একেবারে মায়ের কোল থেকেই নিজেদের গড়ে তোলে সমুদ্রের জলজ পরিবেশে। সমুদ্রের মাঝে তাদের শিশুরা এমনভাবে নিজেদের তৈরি করে যে, অনেকসময় তাদের দৃষ্টিশক্তি ভূমি কিংবা ডাঙার তুলনায় সমুদ্রের গভীর পানির তলেই বেশি তীক্ষ্ণ হয়। পরিণত বয়সে বাজাউরা সমুদ্রের তলদেশে সময় কাটাতে এতটাই দক্ষ হয়ে উঠে যে, বিশ্বের বিজ্ঞানীদের মতে- মানুষের এ ধরণের সামর্থ্য অসম্ভবের কাছাকাছি!
সাতক্ষীরার বাউলকন্যা আসমা এখন ম্যাজিস্ট্রেট!
আমার বাবা মোতাহার হোসেন মন্ডল বাউল সম্প্রদায়ের একজন ব্যক্তি। আমাদের পরিবারে স্বচ্ছলতা ছিলো না। কিন্তু আমাদের ইচ্ছা ছিলো, আমাদের পথ আমরাই তৈরি করবো। কেউ যেন আমাদের পথ তৈরি করে না দেয়। এভাবেই নিজের অনুভূতি জানাচ্ছিলেন ৪০তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত বাউলকন্যা আসমা আক্তার মিতা। অভাবের মাঝেও খেয়ে না খেয়ে পড়াশোনা চালিয়ে গেছেন তিনি। টিউশনি আর বৃত্তির টাকায় বই কিনে পড়ালেখা করেছেন ১৬ ঘণ্টা পর্যন্ত।
অ্যামাজনে চাকরি পেলেন খাইরুল্লাহ গৌরব!
বিশ্বের বৃহত্তম ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনে চাকরি পেয়েছেন নীলফামারীর মো. খাইরুল্লাহ গৌরব। তিনি সদর উপজেলার গোড়গ্রাম ইউনিয়নের বড়াইবাড়ী গ্রামের চেয়ারম্যান বাড়ির ছেলে। গৌরব ২০১১ সালে নীলফামারী সরকারি মহাবিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ সহ উত্তীর্ণ হন।
রায়োনসং রেসিডেন্স: 'ক্ষেপাটে' রাষ্ট্রপতির রহস্যঘেরা এক রাজপ্রাসাদ
বর্তমান পৃথিবীর সবচেয়ে রহস্যময় ব্যক্তিদের একজন উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি কিম জং উন। এখন পর্যন্ত বিশ্বনেতাদের বুড়ো আঙুল দেখাতে কার্পণ্য করেননি তিনি। রহস্যময় এই নেতার জীবনকে যদি একটি বই হিসেবে ধরা হয়, তবে তার প্রতিটি পাতায় রয়েছে রোমাঞ্চ আর অবাক করার মতো হাজারও তথ্য। তবে আজ আমরা আলোচনা করবো এই প্রেসিডেন্টের বাসভবন নিয়ে। কতটা নিরাপদ এই রাজপ্রাসাদ? কী রয়েছে এর ভেতরে?
যুদ্ধক্ষেত্র থেকেই ক্লাস নিয়ে ভাইরাল ইউক্রেনীয় অধ্যাপক
রুশ সেনাদের সাথে যুদ্ধ চলাবস্থায় বালির বস্তা দিয়ে ঘেরা পরিখার পিছনে বসে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস নিচ্ছেন এক ইউক্রেনীয় সেনা। কাঁধে রাইফেল। এক হাতে খাতা-পেন। আর অন্য হাতে মোবাইল ফোন। যা দিয়ে যুদ্ধক্ষেত্র থেকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন তিনি।
ইলহা দা কুইমাদা গ্রান্ডে: স্বর্গীয় যে দ্বীপে শুধুই বাস করে পৃথিবীর সব বিষাক্ত সাপ!
মনোরম সৌন্দর্যে ভরপুর অসংখ্য দ্বীপ উপদ্বীপ ছড়িয়ে রয়েছে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে। 'দ্বীপ' শব্দটি শুনলে আমাদের চোখের সামনে প্রথমেই ভেসে উঠে অপূর্ব এক স্বর্গীয় দৃশ্যের ছবি। অধিকাংশ দ্বীপ তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য পর্যটকদের কাছে বেশি জনপ্রিয়। তবে বিশ্বে এমন কিছু অদ্ভুত দ্বীপ রয়েছে যেখানে অপার্থিব সৌন্দর্যের পাশাপাশি লুকিয়ে আছে ভয়ঙ্কর মৃত্যুফাঁদ। আজ পাঠকদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে তেমনি এক দ্বীপের অজানা কিছু কাহিনী-
৫৩ বছর ইমামতির পর ইমামের রাজকীয় বিদায়, আবেগাপ্লুত মুসল্লিরা
পাবনায় ৫৩ বছর ইমামতি করার পর শতাধিক মোটরসাইকেল, সিএনজি এবং ঘোড়ার গাড়িতে করে জাঁকজমকপূর্ণভাবে বিদায় দেয়া হয়েছে মসজিদের প্রিয় ইমাম ও খতিব হাফেজ আবু মুসাকে। বিদায় বেলায় মসজিদের ইমামকে সম্মানিত করার এমন উদ্যোগের কারণে প্রশংসায় ভাসছেন এলাকাবাসী। পাবনার সুজানগর ও সাঁথিয়া উপজেলার সীমান্ত এলাকা যশমন্তদুলিয়া গ্রামে ঈদের পরদিন ইমামের সম্মানে এ বিরল বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এলাকাবাসী জানান, সুজানগর উপজেলার তাঁতীবন্দ ইউনিয়নের বাড়ইপাড়া গ্রামের হাফেজ আবু মুসা যশমন্তদুলিয়া গ্রামের মসজিদের ইমাম ও খতিব হিসেবে দীর্ঘ ৫৩ বছর দায়িত্ব পালন করেন। এই ৫৩ বছরের মধ্যে তিনি গ্রামবাসীদের আত্মার সঙ্গে মিশে গেছেন। এখন তিনি বার্ধক্যে পৌঁছেছেন। এ অবস্থায় তার বিদায় নেয়ার পালা। কিন্তু বিদায় বেদনার হলেও এলাকাবাসী তা কষ্টে মেনে নেন এবং তার সম্মানে স্থানীয় যশমন্তদুলিয়া যুব সমাজের উদ্যোগে আয়োজন করেন রাজকীয় বিদায় সংবর্ধনার। বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ইমামকে দেয়া হয় ক্রেস্ট। পরে তাকে ঘোড়ার গাড়ির বহরে করে রাজকীয় অথচ চোখের জলে বিদায় দেয়া হয়। এসময় এলাকার মুরুব্বিসহ সর্বস্তরের মানুষ প্রিয় ইমামকে ধরে গাড়িতে তুলে দেন এবং শতাধিক মোটরসাইকেল, সিএনজিসহ ঘোড়ার গাড়িতে করে তার বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিয়ে আসেন।
জনসংখ্যা বাড়াতে মরিয়া চীন, সন্তান নিলে ১২ লাখ টাকাসহ এক বছর ছুটি!
নতুন করে জনসংখ্যা বাড়াতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক পরাশক্তি চীন। শুধু সরকারি উদ্যোগ নয়, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাও চাইছে নবজাতেকর সংখ্যা বাড়ুক দেশে। আর তাতে কর্মীদের উৎসাহ দিতে নতুন নতুন অফার দেয়া শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে লোভনীয় অফার নিয়ে এসেছে চীনা সংস্থা বেইজিং ডাবেইনং টেকনোলজি গ্রুপ। এই অফারে শুধু নগদ অর্থই নয়, সঙ্গে ছুটিও মিলবে। সবচেয়ে লোভনীয় পুরস্কার তৃতীয় সন্তানের ক্ষেত্রে। এক্ষেত্রে সংস্থাটি দেবে চীনা মুদ্রায় ৯০ হাজার ইয়ান। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ১২ লাখ টাকার বেশি। এছাড়া মহিলা কর্মীদের এক বছর এবং পুরুষ কর্মীদের ক্ষেত্রে নয় মাসের বৈতনিক ছুটি। চীনা সংবাদমাধ্যম অনুযায়ী, প্রথম বা দ্বিতীয় সন্তানের ক্ষেত্রেও রয়েছে নগদ পুরস্কারের অফার। প্রথম সন্তানের ক্ষেত্রে চার লাখ টাকা আর দ্বিতীয় সন্তানের ক্ষেত্রে প্রায় সাত লাখ টাকা দেয়া হবে। দেশের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ১৯৮০ সালে উদ্যোগী হয় চীনা সরকার। প্রত্যেক দম্পতির জন্য একটি সন্তান নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়। ফলে দেশটিতে প্রবীণ নাগরিকের সংখ্যা বেড়ে গেছে। ২০১৬ সালে এক সন্তান নীতি থেকে চীন সরে এলেও সমস্যার সমাধান হয়নি। এই পরিস্থিতিতে সরকারি, বেসরকারি উদ্যোগে নাগরিকদের একাধিক সন্তানের জনক-জননী হওয়ার জন্য উৎসাহ দেয়া শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে কর্মীদের নানা অফার দিচ্ছে বিভিন্ন সংস্থা।
পানির ওপর নির্মিত হচ্ছে ১ লাখ মানুষের শহর
এক লাখ মানুষের শহর নির্মিত হচ্ছে পানির ওপর! অবাক করার মতো বিষয় হলেও ইতোমধ্যে ভাসমান শহরটির নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার বুসানে। এটি তৈরিতে খরচ পড়বে বাংলাদেশি টাকায় ১ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। দক্ষিণ কোরিয়ার নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, বিশ্বে এখন জনসংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। কিন্তু বাড়ছে না মোট ভূমির পরিমাণ। যে কারণে এমন শহরের পরিকল্পনা। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে নানা সঙ্কটের মুখোমুখি হচ্ছে জনপদ। তাই পানির ওপর শহর গড়লে পরিবেশের ক্ষতিসাধনও হলো না, বসবাসের জন্য ব্যবস্থাও হলো। পানির ওপর শহর নির্মাণের এই পরিকল্পনার নাম দেয়া হয়েছে ‘ওশিয়ানিক্স’। ২০২৫ নাগাদ এ শহর বসবাসযোগ্য হয়ে উঠবে। এটি নির্মাণে খরচ হবে ২০০ মিলিয়ন ডলার। ১৫ দশমিক ৫ একরের মতো ক্ষেত্রফল হবে এই শহরের। ভাসমান এ শহরে ভবনের উচ্চতা অবশ্যই কম রাখা হবে। সাত তলার থেকে বেশি উঁচু করে ভবন নির্মাণ করা হবে না। কারণ বেশি উঁচু ভবন হলে বাতাসের জন্য সমস্যা হতে পারে। অভিনব শহরটি নির্মাণ করা হবে চুনাপাথর দিয়ে। আপাতত ১২ হাজার মানুষ এ শহরে বাস করতে পারবেন বলে পরিকল্পনা রয়েছে। তবে ভবিষ্যতে এতে এক লাখ লোক বাস করতে পারবেন বলে জানা গেছে।
দীর্ঘসময় কর্মীদের ধরে রাখতে জীবনসঙ্গী খুঁজে দিচ্ছে আইটি কোম্পানি!
দীর্ঘ সময়ের জন্য কর্মীদের ধরে রাখতে জীবনসঙ্গী খুঁজে দিচ্ছে আইটি কোম্পানি। আইটি ফার্মটিতে কর্মী ধরে রাখা মুশকিল হয়ে যাচ্ছিলো বিধায় অনেক ভাবনা চিন্তা করে তারা এই উপায় বের করে। শুরু করেন সকল অবিবাহিত কর্মীদের জন্য ঘটকালি। একইসাথে কর্মীরা বিয়ে করলে তাদের বেতন-বোনাসও বাড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। কোম্পানিটির নাম শ্রী মুকামবিকা ইনফো-সলিউশনস। ২০০৩ সালে ভারতের তামিলনাড়ুতে এর পথ চলা শুরু হয়। কিন্তু নানান কারণে ২০১০ সালে মাদুরাইয়ে উঠে আসে কোম্পানিটি। এরপরই ঝামেলায় পড়ে প্রতিষ্ঠানটি। কর্মী ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছিলো না। ফলে কর্মী সঙ্কটে কোম্পানির লভ্যাংশ কমতে থাকে দ্রুত। বেতন বাড়ানো ও অন্যান্য উদ্যোগেও যখন কাজ হচ্ছিলো না তখনই কর্তৃপক্ষ বিরল এক সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে কোম্পানিটি। কর্মীদের বিয়ে দিতে উদ্যোগী হয়েছে কর্তৃপক্ষ। যদিও কর্মীর এই বিষয়ে ইচ্ছে থাকলে তবেই পাত্রপাত্রী দেখা হচ্ছে। এক্ষেত্রে খরচ ও অন্যান্য সুবিধাও দিচ্ছে কোম্পানিটি। সংস্থাটিতে কর্মী সংখ্যা এখন ৭৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের ৪০ শতাংশ কর্মী পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে আছেন এখানে। কোম্পানির সিইও সলভা গণেশ বলেন, 'কর্মীদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভাই-বোনের। অনেকেই গ্রাম থেকে আসা যুবক-যুবতী। উপযুক্ত জীবনসঙ্গী খুঁজে দিতে কোম্পানি সাহায্য করছে। বিয়েতে দারুণ হইচই করছি সবাই মিলে।' কোম্পানির ঘটকালিতে বেশ ভালো ফল মিলেছে। কর্মীও থাকছে, লাভও বাড়ছে।
মরুভূমিকে ঘন সবুজ ভূমিতে বদলে দিলেন এক বৃদ্ধ তুর্কি!
১৯৭৮ সালে তুরস্কের বন দফতরের কর্মী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন বৃদ্ধ তুর্কি হিকমেত কায়া। দীর্ঘদিন উত্তর তুরস্কে বন দফতরের শীর্ষ কর্তার দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এই দীর্ঘ সময় চোখের সামনে উজাড় হতে দেখেছেন অনেক সবুজ বন।