করোনাভাইরাস | Ridmik News
করোনাভাইরাস
ঢাকায় নতুন করে ২৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত
দেশে গত এক দিনে আরও ৩২ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যাদের ২৬ জনই ঢাকা মহানগর ও জেলার বাসিন্দা। মঙ্গলবার (১৭ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, সকাল পর্যন্ত এক দিনে ৪ হাজার ২৯০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ঢাকায় এই ২৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। যদিও গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর আসেনি। ফলে এ নিয়ে টানা ২৭ দিন কোভিডে মৃত্যুহীন থাকল বাংলাদেশ।
মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত ৩২
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ৩২ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ৮১ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত রয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৫৮ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৮৯৭ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ২৭৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৪ হাজার ২৯০টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮৯ শতাংশ। ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গেল বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।
মৃত্যুশূন্য দেশ, বেড়েছে শনাক্ত
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ৪৯ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৭ শতাংশ। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত রয়েছে। সোমবার (১৬ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২২০ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৬৩৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ৭৯২টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৪ হাজার ৭৯০টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৭৭ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯০ শতাংশ।
দেশে ফের ঊর্ধ্বমুখী করোনা
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ৩৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৩ হাজার ১২ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৮৬ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত রয়েছে। রোববার (১৫ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৬৯ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ৪১৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৮৮৪টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৩ হাজার ৮১৮টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৮৬ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯০ শতাংশ।
উত্তর কোরিয়ায় আট লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত
গত তিনদিনে দূর প্রাচ্যের দেশ উত্তর কোরিয়ায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা আট লাখ ছাড়িয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় ‘জ্বরে’ মৃত্যু হয়েছে আরও ১৫ জনের। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতি সামাল দিতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। সংক্রমণ যে গতিতে এগুচ্ছে তাতে পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন দেশটির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, গত কয়েক দিনে জ্বরে আক্রান্তদের মধ্য থেকে সব মিলিয়ে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। যদিও করোনাভাইরাসে কত জন মারা গেছে তা প্রকাশ করেনি দেশটি। এই পরিস্থিতির জন্য উত্তর কোরিয়া সরকারকে দায়ী করেন বিশেষজ্ঞেরা। কারণ, বিশ্বজুড়ে কোভিড মহামারি শুরুর পরেও কিম জং-উনের দেশে এখন পর্যন্ত করোনার টিকা প্রদান করা হয়নি।
২ বছর পর করোনা মুক্ত রামেক হাসপাতাল
চলতি মাসে রাজশাহীতে করোনা আক্রান্ত কোনো রোগী না পাওয়ায় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বিশেষায়িত ওয়ার্ড ‘করোনা ইউনিট’। গতকাল শুক্রবার (১৩ মে) এই ওয়ার্ডটি বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, ২০২০ সালের মার্চের দিকে এই হাসপাতালে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশেষায়িত ‘করোনা ইউনিট’ তৈরি করা হয়েছিলো। প্রায় দীর্ঘ দুই বছর পর করোনামুক্ত হলো রাজশাহী মেডিকেলে কলেজ হাসপাতাল। শনিবার (১৪ মে) বিকেলে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, করোনাকালের মতো মৃত্যু ও আক্রান্তের হার এখন আর নেই। এজন্য শুক্রবার (১৩ মে) মেডিকেলের করোনা ইউনিটটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে, মাত্র দুই-তিনজন করোনার লক্ষণ নিয়ে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন যারা ১২ মে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। ‘করোনা ইউনিট’ আপাতত এখন রোগী শূন্য। তবে যদি দু'একজন রোগী করোনার লক্ষণ নিয়ে আসে তাহলে তাদের রাজশাহী সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল (আইডিএইচ) এ পাঠানো হবে বলে জানান তিনি।
মৃত্যুশূন্য দেশ, আক্রান্ত ২২
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ২২ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৭৯ জনে। এ ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। এ পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ২৯ হাজার ১২৭ জন। শনিবার (১৪ এপ্রিল) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
মৃত্যুশূন্য দেশ, আক্রান্ত ১৮
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৫৭ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত থাকল। শুক্রবার (১৩ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৩২৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৮ হাজার ৯৩০ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৫৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৪ হাজার ৪টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৪৫ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯১ শতাংশ।
করোনায় প্রথম মৃত্যুর ঘোষণা উ. কোরিয়ার
করোনায় প্রথম মৃত্যু ও শনাক্ত হওয়ার কথা গত বুধবার (১১ মে) সরকারিভাবে নিশ্চিত করার পর দেশজুড়ে লকডাউনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। দেশটতে ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম কেসিএনএ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে ওমিক্রনের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে দেশটির শীর্ষ নেতা কিম জং উন এক টিভি ভাষণে বলেছেন, এ পর্যন্ত ১ লাখ ৮৭ হাজার ৮০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোয়ারেন্টিনে আছেন। এ সময় তাকে প্রথমবারের মতো মাস্ক পড়তে দেখা যায়। কিম জং উন করোনার এ প্রাদুর্ভাব মোকাবেলার প্রস্তুতি নিয়ে জরুরি বৈঠক করছেন। তবে উত্তর কোরিয়ার সরকারি ভাষ্যে বুধবার প্রথমবারের মতো কোভিড রোগী শনাক্তের কথা বলা হলেও দেশটিতে অনেক দিন থেকেই করোনাভাইরাসের উপস্থিতি আছে বলে ধারণা পর্যবেক্ষকদের। উত্তর কোরিয়া সরকারিভাবে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হওয়া কথা নিশ্চিত করার পর গত বৃহস্পতিবার (১২ মে) থেকে দেশজুড়ে লকডাউনের নির্দেশ দিয়েছে।
দেশে ফের ঊর্ধ্বমুখী করোনা
সারাদেশে ফের বাড়তে শুরু করেছে করোনার প্রভাব। ২৪ ঘণ্টায় ৫১ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরআগে, গতকাল বুধবার (১১ মে) ৩৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। ফলে এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৩৯ জন। এছাড়া শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে শূন্য দশমিক ৮৯ শতাংশ। কিন্তু গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে এ মহামারিতে কারো মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া যায়নি। দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মোট মারা গেছে ২৯ হাজার ১২৭ জন। বৃহস্পতিবার (১২ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৯১ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৮ হাজার ৬০৩ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ৬৯৭টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৫ হাজার ৭৩৬টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৮৯ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯১ শতাংশ।
ওমিক্রন আতঙ্কে উত্তর কোরিয়ায় লকডাউন
দূর প্রাচ্যের দেশ উত্তর কোরিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার পর দেশজুড়ে কঠোর লকডাউনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম পিয়ংইংয়ে করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের প্রাদুর্ভাবের কথা জানানো হয়েছে। তবে কতজন এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন তা জানানো হয়নি। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় রেডিও স্টেশন কেসিএনএ জানিয়েছে, লকডাউনের ঘোষণা ছিল সবচেয়ে জরুরি প্রয়োজন। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন মহামারি মোকাবিলায় কী ব্যবস্থা নেয়া যায় তা নিয়ে জরুরি বৈঠক করেছেন। তবে পর্যবেক্ষকদের ধারণা, দেশটিতে এ ভাইরাসের অস্তিত্ব দীর্ঘদিন ধরেই রয়েছে। যদিও সেগুলো রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়নি।
বিশ্বজুড়ে করোনায় কমেছে মৃত্যু ও শনাক্ত
চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। একইসঙ্গে আগের দিনের তুলনায় কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন প্রায় দেড় হাজার মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা নেমে এসেছে পৌনে ৬ লাখের নিচে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৪৯২ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে দুই শতাধিক। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬২ লাখ ৮২ হাজার ৬২ জনে। একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৭১ হাজার ১০২ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে প্রায় ২০ হাজার। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫১ কোটি ৯০ লাখ ৪ হাজার ৭০৪ জনে।
দেশে বেড়েছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা
সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় ৩৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৮৮৮ জনে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৫৩ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জন অপরিবর্তিত থাকল। বুধবার (১১ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৪৯ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৮ হাজার ৩১২ জন। ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ২১৭টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৬ হাজার ১৮২টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৫৩ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯২ শতাংশ। ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গেল বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।
করোনায় সুস্থ হওয়ার সূচকে বাংলাদেশ ৫ম, যুক্তরাষ্ট্রের অভিনন্দন
করোনায় সুস্থ হওয়ার সূচকে বিশ্বের ১২১ দেশের মধ্যে ৫ম অবস্থানে থাকার জন্য বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গতকাল মঙ্গলবার (১০ মে) ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের এক বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়। মার্কিন দূতাবাসের বার্তায় বলা হয়েছে, নিকেই রিকভারি ইনডেক্সে বিশ্বব্যাপী ১২১ দেশের মধ্যে ৫ম স্থানে থাকার জন্য বাংলাদেশকে অভিনন্দন। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৭৫.৪৬ শতাংশ কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের কমপক্ষে একটি ডোজ পেয়েছে এবং ৬৮.১৯ শতাংশ দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছে। সারাদেশে ৬৪ মিলিয়ন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন বিতরণে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে অংশীদারিত্ব করতে পেরে যুক্তরাষ্ট্র গর্বিত। করোনায় সুস্থ হওয়ার সূচকে বিশ্বের ১২১ দেশের মধ্যে ৫ম অবস্থানে এসেছে বাংলাদেশ। আর দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ রয়েছে প্রথম স্থানে।
করোনা আক্রান্ত হলেন বিল গেটস
মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার (১০ মে) করোনা আক্রান্ত হওয়ার তথ্য জানিয়ে টুইট করেছেন শীর্ষস্থানীয় এ ধনকুবের। করোনা পজিটিভ হওয়ার পর আইসোলেশনে আছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। টুইটে তিনি লেখেন, আমার করোনা পজিটিভ হয়েছে। মৃদু উপসর্গ রয়েছে, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে পুরোপুরি সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত নিজেকে আইসোলেশনে রাখছি। আরেক টুইটে তিনি লেখেন, আমি সৌভাগ্যবান যে আমি টিকা পেয়েছি এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও দুর্দান্ত চিকিৎসা সেবা পেয়েছি। করোনাভাইরাস মহামারি অবসানে সোচ্চার ভূমিকা রাখছেন বিল গেটস। বিশেষ করে বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোতে করোনা টিকা ও প্রয়োজনীয় ওষুধের সরবরাহ বাড়াতে মার্কিন এই ধনকুবের বেশ সক্রিয়।