গ্রেফতার | Ridmik News
গ্রেফতার
মামার বুকে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে হত্যা করলো ভাগিনা
সম্পত্তির বন্টনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট দ্বন্দে নরসিংদীর পলাশে ভাগিনার হাতে মামা খুনের ঘটনায় হত্যাকারী ভাগিনাকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। গত ১৮ এপ্রিল ভাগিনার ছুরিকাঘাতে মামা আতাউর খুনের ঘটনায় মামলার প্রধান আসামী নিয়ন শেখকে (২২) গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) রাতে গাজীপুরের কালীগঞ্জ এলাকা গ্রেফতার করেছে সিআইডি। বুধবার (১৮ মে) দুপুরে সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর। তিনি বলেন, সম্পত্তি বন্টন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ভাগিনা নিয়ন শেখ কর্তৃক মামা আতাউরের বুকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করলে গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে ঢাকার একটি বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় বাদী হয়ে নিহতের পরিবার একটি হত্যা মামলা করেন। প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি স্বীকার করেছে অভিযুক্ত আসামী ও ভাগিনা নিয়ন শেখ।
যুবককে হত্যার দায়ে ৯ মামলার আসামি গ্রেফতার: সিআইডি
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার গাবতলী এলাকায় মো. ইল্লাল সরদার নামে এক যুবকের ছুরিকাঘাতে মো. সোহান মিয়া নামে এক যুুবককে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত ৯ মামলার আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। বুধবার ১৮ মে দুপুরে মালিবাগে সিআইডির প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর। তিনি বলেন, চাঞ্চল্যকর এই হত্যাকাণ্ডের পরপরই এলআইসি শাখা ছায়া তদন্ত শুরু করে। ঘটনাস্থল থেকে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ঘটনার সঙ্গে মামলার প্রধান আসামি ইল্লাল এর সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) রাতে এলআইসি'র একটি চৌকস দল অভিযান পরিচালনা করে ডিএমপি’র খিলগাঁও ত্রিমোহনী এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে ইল্লাল জানায়, কিছুদিন আগে গাবতলী বাজার থেকে দেওয়ানগঞ্জ বাজারে যাওয়া নিয়ে এক অটো রিকশা চালকের সঙ্গে তর্কের পরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন নিহত সোহানের পরিবার। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে খুন, চুরি, মাদক ও নারী নির্যাতনসহ মোট ৯টি মামলা রয়েছে।
বঙ্গবন্ধু পরিবারের নাম ভাঙ্গিয়ে কোটি টাকা আত্মসাৎ, মূল হোতা গ্রেফতার
বঙ্গবন্ধু পরিবারের নাম ভাঙ্গিয়ে কোটি টাকা আত্মসাৎ করা প্রতারক চক্রের ২ মূল হোতা মনসুর আহমেদ ও মহসিন চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে র্যাব। বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যসহ রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির নাম ও পরিচয় ভাঙ্গিয়ে সরকারি বিভিন্ন উন্নয়ন ও নির্মাণ প্রকল্পের কাজ পাইয়ে দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন ঠিকাদারি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করত তারা। প্রতারক চক্রের মূলহোতা মনসুর আহমেদ এবং তার অন্যতম সহযোগীকে রাজধানীর পল্টন থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বুধবার ১৮ মে দুপুরে রাজধানীর কাওরান বাজারে র্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) সূত্রে জানা যায়, প্রতারক ও জালিয়াতি চক্র কর্তৃক বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যসহ রাষ্ট্রের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের নাম ও পরিচয় ভাঙ্গিয়ে সরকারি বিভিন্ন উন্নয়ন এবং নির্মাণ প্রকল্পের কাজ অর্থের বিনিময়ে পাইয়ে দেয়ার মিথ্যা আশ্বাস প্রদান করে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন।
যশোরে স্বামীকে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে হত্যার চেষ্টা, স্ত্রী আটক
যশোর জেনারেল হাসপাতালে অসুস্থ স্বামীর শরীরে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে হত্যা চেষ্টার সময় স্ত্রী হাতেনাতে ধরা পড়েছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) সকাল ১১টার দিকে হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে এ ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ ও হাসপাতালের দায়িত্বরত সেবিকারা জানান, ঝিকরগাছা উপজেলার টাওরা গ্রামের নূর ইসলাম অসুস্থ হয়ে যশোর জেনারেল হাসপাতালের পুরুষ মেডিসেন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এখানে তার প্রথম স্ত্রী জয়গুন নেসা (৪৫) একটি ওষুধের শিশি থেকে সিরিঞ্জ দিয়ে বিষাক্ত ওষুধ নিয়ে স্বামীর হাতের ক্যানোলার মধ্যে পুশ করার চেষ্টা চালায়। এ সময় পাশের বেডের রোগীর স্বজনরা বিষয়টি সন্দেহজনক মনে করে দায়িত্বরত সেবিকাদের খবর দিলে তারা হাতেনাতে জয়গুন নেসাকে ধরে ফেলেন। পরে হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের খবর দিয়ে তাদের হাতে তুলে দেয়া হয়। এরপর ঘটনাস্থলে পুলিশ ও সাংবাদিকরা এসে ওই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি দোষ স্বীকার করে জানান, তিনি ঝিকরগাছার একটি দোকান থেকে বিষাক্ত ওই ওষুধ গোপনে কিনে নিয়ে হাসপাতালে আসেন। সেই ওষুধ তিনি স্বামীর শরীরে ক্যানলার মাধ্যমে কৌশলে পুশ করে হত্যার চেষ্টা চালান।
সিলেটে পুলিশের উপর হামলা: জামাত-শিবিরের ২ কর্মী আটক
সিলেটের বন্দরবাজার জেলরোডে জামায়াত-শিবিরের ঝটিকা মিছিল থেকে পুলিশের উপর হামলা চালানো হয়। ঘটনাস্থল থেকে ফেরদৌস আলম ও সামী চৌধুরী নামে ২ জনকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) বেলা ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আটককৃতদের কোতোয়ালি মডেল থানায় নিয়েছে পুলিশ। মহানগর পুলিশের উপ কমিশনার (উত্তর) আজবাহার আলী শেখ জানান, পুলিশ মিছিলে বাঁধা দিলে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশের উপর হামলা চালায়। কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ আলী মাহমুদ ও বন্দরবাজার ফাঁড়ি ইনচার্জ নিশু লাল দে আহত হন। হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ জানায়, গণকমিশন কর্তৃক ‘ধর্মব্যবসায়ী হিসেবে’ ১১৬ জন আলেমের তালিকা প্রকাশের প্রতিবাদে এ মিছিল বের করেন সংগঠনের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি জেলরোডে আসার পর পুলিশ মিছিলটি থামাতে চাইলে পরিস্থিত উত্তপ্ত হয়। এদিকে রাত সোয়া ৯টায় রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আটক দুজন থানাতেই রয়েছেন। মামলা এখনও নথিভুক্ত হয়নি।
শিশু নির্যাতনের অভিযোগে ইসলামি বক্তা কারাগারে
রাজশাহীর পবার আল জামিয়া আল সালাফিয়া মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রকে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ইসলামীক বক্তা আব্দুর রহমানের জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার (১৭ মে) দুপুরে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবুল মনসুর মিয়া এ আদেশ দেন। আব্দুর রহমান আলোচিত ইসলামীক বক্তা আব্দুর রাজ্জাক বিন ইউসুফের মেজো ছেলে। তার নাতির বিরুদ্ধে টাকা চুরির অভিযোগ করেছিলেন ওই মাদ্রাসার ১২ বছর বয়সী ছাত্র রামিম ইসলাম রিফাত। এ কারণে তাকেই পিটিয়ে আহত করেছিলেন রাজ্জাকের ছেলে আব্দুর রহমান। গত ১৬ মার্চ এ ঘটনা ঘটান তিনি। এর পর আহত ওই ছাত্রকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।এ ঘটনায় রামিম এর বাবা বাদী হয়ে আব্দুর রহমানকে আসামি করে নগরীর শাহমখদুম থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।বাদী পক্ষের আইনজীবী শাহাদত হোসেন জানান. ওই মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেলেও তার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে পুনরায় জামিনের আবেদন করেন আব্দুর রহমান। তবে আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে।
সিলেটে স্বামীর বিষে স্ত্রীর মৃত্যু
বিয়ের মাত্র এক মাসের মাথায় স্বামীর বিষে প্রাণ গেল এক নববধূর। ওই নারীর নাম লনি বেগম (২৪)। সোমবার (১৬ মে) সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান। মৃত্যুর আগে লনি বেগম স্বামীর বিরুদ্ধে তাকে বিষ খাওয়ানোর অভিযোগ করেছেন। তার ওই জবানবন্দি রেকর্ড করেছে সিলেট এয়ারপোর্ট থানা পুলিশ। লনির ভাই মামলা দায়ের করলে শুক্রবার রাতে নিহতের স্বামী জামালকে গ্রেফতার করা হয়। অভিযুক্ত স্বামী জামাল উদ্দিন সিলেট এয়ারপোর্ট থানার খাদিমনগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মহালদিক গ্রামের মৃত টিকই মিয়ার ছেলে।
এক বছরের সাজা এড়াতে ১২ বছর পলাতক ছিলেন শাহাব উদ্দিন
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেতৈয়া গ্রামে এক বছরের সাজার আদেশপ্রাপ্ত পলাতক আসামি শাহাব উদ্দিনকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার (১৬ মে) দিনগত রাতে জেলার মাধবপুর উপজেলার মৌজাপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করেন পুলিশ। গ্রেফতার সাহাব উদ্দিন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার তেতৈয়া গ্রামের ইয়ান উদ্দিনের ছেলে। ২০১০ সালে একটি জিআর মামলায় হবিগঞ্জ আদালত থেকে তার বিরুদ্ধে এক বছরের কারাদণ্ডের আদেশ হয়েছিল। হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মমিনুল ইসলাম বলেন, শাহাব উদ্দিনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালে আদালত থেকে সাজার আদেশ হওয়ার পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার (১৭ মে) সাহাব উদ্দিনকে আদালতে সোপর্দ করা হবে।
শাহজালালে যুবকের পাকস্থলী থেকে মিললো ৫ হাজার ইয়াবা!
পেটের ভেতর বিশেষ কায়দায় ইয়াবা রেখে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে পাচারের সময় মাসুদ খান (৩৯) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১০)। মাসুদ খান চাঁদপুর জেলার রুহুল আমিন খানের ছেলে। সোমবার (১৬ মে) বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মোহাম্মদ জিয়াউল হক জিয়া এ তথ্য জানান। জিয়াউল হক জিয়া জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে রোববার (১৫ মে) রাত পৌনে ১২টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে অভিযান চালােনো হয়। অভিযানে বিশেষ কায়দায় পাকস্থলীতে রাখা সাড়ে ৪ হাজার ইয়াবাসহ মাসুদ নামে একজনকে আটক করা হয়। তিনি বলেন, অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের সামনে থেকে আটক ওই ইয়াবা কারবারিকে প্রথমে আমরা যাত্রী মনে করেছিলাম। সমসাময়িক সব ফ্লাইটের বোর্ডিং পাস ও টিকিট চেক করে নিশ্চিত হতে পারি তিনি কোনো ফ্লাইটের যাত্রী নন। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান, একজনের কাছে তার মোবাইল নম্বর দেয়া। বিমানবন্দরের সামনে ওই ব্যক্তি ফোন করে যোগাযোগ করে ইয়াবা চালান দেওয়ার কথা ছিল।
চেক জালিয়াতির মামলায় ইভ্যালির রাসেল দম্পতির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
দেশের আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাসেল ও তার স্ত্রীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ঢাকার ধামরাইয়ের এক গ্রাহকের দায়ের করা চেক প্রতারণা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। সোমবার (১৬ মে) দুপুরের দিকে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক কাজী আশরাফুজ্জামান এ আদেশ দেন বলে জানান বাদীপক্ষের আইনজীবী আব্দুল ওয়ারেজ।
গাজীপুরে ভুয়া পুলিশ গ্রেফতার
গাজীপুরের টঙ্গী থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিচয় দেয়া এক প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া আরিফের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার মজলিসপুর গ্রামে। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ জানান, গতকাল রোববার (১৫ মে) রাতে টঙ্গী পশ্চিম থানা পুলিশ থানাধীন সফিউদ্দিন একাডেমি রোডে অভিযান চালিয়ে পিবিআই লেখা সম্বলিত জ্যাকেট, বাংলাদেশ পুলিশ লেখা সম্বলিত মাস্ক এবং পুলিশ ইউনিফর্মে ব্যবহৃত বিভিন্ন প্রতীকসহ ভূয়া পিবিআই পুলিশ মো: আরিফ (২০) কে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত প্রতারকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
পি কে হালদারের বিষয়ে যা করার আইনগতভাবে করব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
পি কে হালদার বাংলাদেশে ওয়ান্টেড ব্যক্তিত্ব। আমরা ইন্টারপোলের মাধ্যমে তাকে অনেক দিন ধরেই চাইছি বলে উল্লেখ্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে আমাদের এখনো অফিশিয়ালি কিছু আসেনাই। আমাদের যা কাজ আমরা আইনগতভাবে করব। রোববার (১৫ মে) ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সেমিনারে তিনি কথা বলেন। ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: ইতিহাসের পুনর্নির্মাণ’ শীর্ষক সেমিনারটির আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম। এর আগে গতকাল শনিবার (১৪ মে) সকালে এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পি কে হালদারসহ ছয়জনকে পশ্চিমবঙ্গের অশোকনগর থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার অন্য পাঁচজন হলেন- উত্তম মিত্র, স্বপন মিত্র, সঞ্জীব হালদার, প্রাণেশ হালদার (প্রীতিশ) ও তার স্ত্রী।
বিদেশগামীদের করোনার ভুয়া সনদ দেয়া চক্রের ৭ সদস্য গ্রেফতার
করোনাভাইরাস পরীক্ষার সনদপত্র নিয়ে বিদেশগামী যাত্রীদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর বনানীতে অভিযান চালিয়ে একটি চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। চক্রটি অতিরিক্ত টাকার বিনিময়ে করোনা টেস্টের ভুয়া সনদ দিতো বলে অভিযোগ রয়েছে। শনিবার (১৪ মে) রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। তবে প্রাথমিকভাবে গ্রেফতারদের নাম জানায়নি র‍্যাব। র‍্যাব-১-এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র বিদেশগামী যাত্রীদের করোনাভাইরাস পরীক্ষার সনদপত্র দেওয়া নিয়ে প্রতারণা করে আসছিল। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বনানী এলাকায় অভিযান চালিয়ে এ চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এ বিষয়ে রোববার (১৫ মে) র‍্যাব-১-এর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে বলেও জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।
ফেসবুকে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য শেয়ার করায় মারাঠি অভিনেত্রী গ্রেফতার
সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের বর্ষীয়ান রাজনীতিক ও জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) সভাপতি শরদ পাওয়ার সম্পর্কে ‌‘অপমানজনক’ পোস্ট শেয়ার করার অভিযোগে মারাঠি অভিনেত্রী কেতকী চিতালেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ওই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পরে গতকাল শনিবার (১৪ মে) তাকে নাভি মুম্বাই থেকে গ্রেফতার করে থানে পুলিশ। এর আগে গত শুক্রবার (১৩ মে) পোস্টটি শেয়ার করা হয়। তবে ফেসবুকের পোস্টটি কেতকী নিজে লেখেননি। মারাঠি ভাষায় লেখা সেই পোস্ট অন্য একজনের লেখা। সেটি ফেসবুকে শেয়ার করেছিলেন অভিনেত্রী। তার জেরেই বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। পোস্টে কারও নাম সরাসরি ব্যবহার করেননি। তবে ‘পাওয়ার’ পদবি এবং নেতার বয়স ৮০ বলে উল্লেখ করা হয়, যা দেখেই নেতাদের ধারণা, পোস্টটিতে শরদ পাওয়ারকেই কটাক্ষ করা হয়েছে। যে পোস্টে কয়েকটি জায়গায় লেখা ছিল, ‘নরক আপনার অপেক্ষায়’। ‘আপনি ব্রাহ্মণদের ঘৃণা করেন’-এর মতো আপত্তিকর লাইনও ছিল সেখানে। যদিও এনসিপি সভাপতি শরদ পাওয়ারের বয়স ৮১ বছর।
পি কে হালদার ৩ দিনের রিমান্ডে
অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে বিদেশে পাড়ি জমানো প্রশান্ত কুমার হালদারকে (পি কে হালদার) ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে গ্রেফতারের পর তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। প্রদেশের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা থেকে পি কে হালদারকে শনিবার (১৪ মে) দুপুরের দিকে গ্রেফতারের পর আদালতে তুলে রিমান্ডের আবেদন করা হলে তা মঞ্জুর করা হয়। এদিন ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রণালয়ের তদন্তকারী সংস্থা ইনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার অশোক নগরের একটি বাড়ি থেকে পি কে হালদার ও তার পাঁচ সহযোগীকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে আদালতে তোলে ইডি। এক বিবৃতিতে ইডি বলেছে, হাজার কোটি টাকা পাচারকারী পি কে হালদার নাম পাল্টে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশে বসবাস করতেন। প্রদেশের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার অশোক নগরের একটি বাড়িতে আত্মগোপনে ছিলেন তিনি। সেখান থেকে পি কে হালদারসহ মোট ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে ভারতীয় আইনশৃঙ্খলাবাহিনী।